চট্টগ্রাম সংবাদফটিকছড়িশিরোনামস্লাইড নিউজ

ওরশ শরীফ উপলক্ষে ফটিকছড়িতে প্রশাসনিক সমন্বয় সভা

ডেস্ক রিপোর্ট: আগামী ১২ ভাদ্র ২৭ আগস্ট মাইজভাণ্ডার দরবার শরীফে অনুষ্ঠেয় শায়খুল ইসলাম শাহ্সূফী মাওলানা সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ক.) এর ৮ম বার্ষিক ওরশ শরীফ সফল করার লক্ষ্যে ফটিকছড়ি উপজেলা ও থানা প্রশাসনের সঙ্গে প্রশাসনিক সমন্বয় সভা ১৯ আগস্ট-২০১৯ সোমবার সন্ধ্যায় মাইজভাণ্ডার গাউছিয়া রহমানিয়া মইনীয়া মন্জিলের সেমিনার হলে অনুষ্ঠিত হয়।

এতে সভাপতিত্ব করেন ফটিকছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: সায়েদুল আরেফীন। তিনি বলেন, মাইজভাণ্ডার দরবার আধ্যাত্মিকতার পীঠস্থান। এ দরবারকে নিয়ে আমরা গর্ববোধ করি। মাইজভাণ্ডারী মহাত্মাদের প্রদর্শিত শান্তির পথে প্রতিষ্ঠিত থেকে আমাদেরকে তাঁদের আধ্যাত্মিক অনুগ্রহের ভাগিদার হতে হবে। আউলিয়ায়ে কেরামের ওরশ শরীফে এই মানবতার মিলন উৎসবে সবইকে শামিল হতে হবে। প্রধান অতিথি ছিলেন মাইজভাণ্ডার দরবার শরীফের সাজ্জাদানশীন শাহ্সূফী সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (মা.জি.আ.)। সভায় সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (মা.জি.আ.) বলেন, মাইজভাণ্ডার দরবারে মানবতা, মানবপ্রেম ও মানুষে মানুষে ভালোবাসার প্রেরণা ও শিক্ষাই দিয়ে আসছেন মাইজভাণ্ডারী মহাত্মা ও মাশায়েখে কেরাম। মানুষে মানুষে ভালোবাসা ও সম্প্রীতি না থাকায় সারা বিশ্বে আজ অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। এক দেশ আরেক দেশকে বশীভূত ও ঘায়েল করতে হুংকার ছাড়ছে। কথা বলছে অস্ত্রের ভাষায়। বৈশ্বিক এই উত্তপ্ত পরিস্থিতি থেকে বেরিয়ে আসতে অস্ত্র ও পেশি শক্তির পথ ছেড়ে আউলিয়ায়ে কেরামের অনুসৃত শান্তি, সম্প্রীতি ও ভালোবাসার পথ ধরতে হবে। অস্ত্রের ঝনঝনানি নয়, মানুষে মানুষে ভালোবাসা ও মেলবন্ধন গড়ে তুলে বৈশ্বিক শান্তির বাতাবরণ তৈরি করতে হবে। আর মানুষকে ভালোবাসার মাধ্যমে বৈশ্বিক শান্তি প্রতিষ্ঠায় পথিকৃতের ভূমিকাই রেখেছিলেন শাহ্সূফি মাওলানা সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ক.)।

প্রশাসনিক সমন্বয় সভায় ওরশ শরীফ উপলক্ষে সারা দেশ থেকে মাইজভাণ্ডার দরবার শরীফে আসা শত শত বিভিন্ন যানবাহনের শৃংখলা রক্ষা, যানজট রোধে পুলিশ প্রশাসনের পাশাপাশি মন্জিলের স্বেচ্ছাসেবকদের দায়িত্ব পালন, স্যানিটেশন ও পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখা, বিদ্যুৎ সরবরাহ নিরবচ্ছিন্ন রাখা, অস্বাস্থ্যকর ধুলোবালিযুক্ত খাবার বর্জন এবং সর্বস্তরের নারী পুরুষ যাতে ওরশের দিনে নির্বিঘেœ যাতায়াত করতে পারে এসব বিষয়ের ওপর জোর দেয়া হয়।

এব্যাপারে উপজেলা, থানা প্রশাসনসহ নানা সংস্থা সমন্বিত পদক্ষেপ নেবে বলে সভায় সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সমন্বয় সভায় বক্তব্য দেন আন্জুমান সাবেক সভাপতি খলিফা আল্হাজ্ব ইকবাল রিসালপুরী, ফটিকছড়ি থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বাবুল আকতার, আজাদী বাজার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার এজিএম আবু তৈয়ব, হযরত সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ মাইজভাণ্ডারী ট্রাস্টের মহাসচিব অ্যাডভোকেট কাজী মহসীন চৌধুরী, আন্জুমান চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা সাধারণ সম্পাদক কাজী মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ, ফটিকছড়ি প্রেসক্লাব সভাপতি সাংবাদিক জাহেদ উল্লাহ কোরাইশী, সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক মো: রফিকুল আলম, নানুরপুর ইউপি প্যানেল চেয়ারম্যান আমান উল্লাহ আমান, তৌহিদুল আলম মেম্বার, রোসাংগিরি ইউপি আওয়ামী লীগ নেতা ইসমাইল হোসেন দুলাল, ইউপি মেম্বার মো: সফিউল আজম, উপজেলা একাডেমী শিক্ষা অফিসার জনাব মো: আক্রাম হোসেন, সফিক আহমেদ মেম্বার, সাবেক মেম্বার মো: ইউনুস, যানবাহন মালিক সমিতির সভাপতি মো: ইস্কান্দার, সুন্দরপুর আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক মো: নূরুল ইসলাম প্রমুখ। উপস্থিত ছিলেন এলাকার পাঁচ পাড়ার সর্দারবৃন্দ ও বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

সভা শেষে সর্বমানবতার কল্যাণ ও সমৃদ্ধি কামনা করে বিশেষ মুনাজাত করেন হযরত শাহ্সূফী সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (মা.জি.আ.)।