পাহাড়ের সংবাদরাঙ্গামাটি সংবাদশিরোনামস্লাইড নিউজ

চিকিৎসকের প্রেসক্রিপসন ব্যতীত ‘এন্টিবায়োটিক’ ব্যবহার না করার পরামর্শ

রাঙামাটি প্রতিনিধি: রাঙামাটি: রেজিস্ট্রার্ড চিকিৎসকের পরামর্শ ব্যতীত ‘এন্টিবায়োটিক’ ঔষধ ব্যবহার না করার পরামর্শ দিয়েছেন, রাঙামাটি সিভিল সার্জন ডা: শহীদ তালুকদার। রোববার ২৪নভেম্বর রাঙামাটি সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়কের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত বিশ্ব এন্টিবায়েটিক সচেতনতা সপ্তাহ ২০১৯ উপলক্ষ্যে আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

সিভিল সার্জন বলেন, সুস্থ জাতি গড়ে তুলতে হলে ঔষধের ব্যবহার সম্পর্কে জানতে হবে। এন্টিবায়োটিকের অপব্যবহার আমাদের ভবিষ্যৎ জাতি ক্ষতির সন্মুখীন হচ্ছে। এজন্য তিনি গ্রাম্য পল্লী চিকিৎসক এবং ঔষধ বিক্রেতাদের দায়ী করেছেন এবং তাদের অতিসত্ত্বর আইনের আওতায় এনে শাস্তি প্রদানের জন্য সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকে অনুরোধ করেছেন।

সিভিল সার্জন ডা: শহীদ তালুকদার জানান, আমাদের সরকারি হাসপতালগুলোতে ৫টাকা ফি দিলে রেজিস্ট্রার্ড ডাক্তার এর একটি প্রেসক্রিপসন পাওয়া যাচ্ছে; সাথে পাচ্ছে বিনামূল্যে ঔষধ।

রাঙামাটি সদর হাসপাতালে উন্নতমানের এক্স্ররে মেশিনসহ নানা ধরণের উন্নত চিকিৎসা ব্যবস্থা করা হয়েছে। রাঙামাটি মেডিকেল কলেজ হওয়ায় এখানে দক্ষ ডাক্তারদের অভাব নেই। এজন্য তিনি ডাক্তারের পরামর্শ ব্যতীত ‘এন্টিবায়োটিক’ ঔষধ না খাওয়ার পরামর্শ প্রদান করেছেন.।

‘এন্টিবায়োটিক’ এর কুফল সম্পর্কে বর্ণনা করতে গিয়ে রাঙামাটি সদর হাসপাতালের জুনিয়র কনসালটেন্ট ডা: খোরশেদ আলম জানান, বাংলাদেশে তেমন কোন ‘এন্টিবায়োটিক’ প্রস্তুত করা হয় না। কারণ এন্টিবায়োটিক তৈরি করা অনেক খরচের ব্যাপার। আমাদের হাতে যেসব এন্টিবায়োটিক আছে তা বৈজ্ঞানিক উপায়ে ব্যবহার করি।

ডা: খোরশেদ আরও জানান, একটি অনুজীব ১০হাজার কোটি অনুজীব তৈরি করে। বিনা প্রয়োজনে এন্টিবায়োটিক ব্যবহার থেকে বিরত থাকতে সকলের প্রতি আহ্বান জানান।

রোগ থেকে মুক্তি পেতে খাওয়ার আগে এবং শৌচাগার থেকে বের হয়ে সাবান দিয়ে হাত দোয়া, বিভিন্ন রোগের টিকা গ্রহণ এবং নিরাপদ খাদ্য ও পানি গ্রহণ করার পরামর্শ প্রদান করেন তিনি।

এর আগে দিবসটি উপলক্ষ্যে রাঙামাটি সদর হাসপাতাল প্রাঙ্গন থেকে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়। শোভাযাত্রাটি ওই এলাকার গুরুত্বপূর্ণূ সড়ক প্রদক্ষিণ করে সিভিল সার্জন এর কার্যালয়ে এসে আলোচনা সভায় মিলিত হয়।

সভা পরিচালনা করেন, রাঙামাটি সদর হাসপতালের আবাসিক চিকিৎসক ডা: শওকত আকবর। এসময় শিক্ষানুবীষ ডাক্তার, সেবিকারা এবং সংশ্লিষ্ট অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।