খাগড়াছড়িখাগড়াছড়ি সংবাদপাহাড়ের সংবাদরামগড়শিরোনামস্লাইড নিউজ

প্রাচীন মহকুমা রামগড়কে জেলা ঘোষণার দাবি

স্টাফ রিপোর্টার: পার্বত্য চট্টগ্রামের ১৯২০ সালের সাবেক মহকুমা শহর রামগড়কে জেলায় রুপান্তরের দাবীতে ২৪ এপ্রিল বুধবার উপজেলা পরিষদ সম্মেলন কক্ষে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান (ভারপ্রাপ্ত) আব্দুল কাদেরের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

রামগড় উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি মো: নিজাম উদ্দিনের সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন, রামগড় উপজেলা আওয়ামীলীগের আহ্বায়ক মো: শাহআলম মজুমদার, জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য শের আলী ভূঁইয়া, বেলায়েত হোসেন, হেঁয়াকো বনানী কলেজের অধ্যক্ষ ফারুকুর রহমান, পৌর আওয়ামীলীগের আহ্বায়ক রফিকুল আলম কামাল, রামগড় বাজার পরিচালনা কমিটির সভাপতি আবুল হাশেম খাঁ, মুক্তিযোদ্ধা ছালেহ আহাম্মদ, সংরক্ষিত উপজেলা পরিষদ সদস্য কনিকা বড়–য়া, কার্বারী এসোসিয়েশনের সভাপতি আনন্দ মোহন ত্রিপুরা, ব্যবসায়ী ফয়েজ আহাম্মদ ডিপটী, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা শাহ আলম, আওয়ামীলীগ নেতা সামছুদ্দিন মিলন, সাংবাদিক মোশারফ হোসেন, ন্যাশনাল সার্ভিস একতা কল্যাণ পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মো: মোস্তফা ইহজাজ ও রামগড় যুব রেড ক্রিসেন্টের উপ প্রধান আফছার হোসেন।

বক্তারা বলেন, ১৯২০ সালের সাবেক মহকুমা ঐতিহ্যবাহী রামগড় একসময় ৪টি ইউনিয়নের সমন্বয়ে গড়ে উঠা রামগড় উপজেলা বর্তমানে ২টি ইউনিয়নে আসায় রামগড় তার জৌলস হারাতে বসেছে। অথচ যে চারটি উপজেলা মহকুমা হওয়ার পরেও জেলায় উন্নতি হয়নি তাদের মধ্যে রামগড় জেলার অন্যতম দাবীদার। কারন একটি উপজেলায় যে প্রশাসনিক কার্যালয়গুলি থাকার কথা তার সবগুলি থাকার পরও রয়েছে কিছু অতিরিক্ত শাখা। যার কারনে রামগড়কে জেলা করা হলে সরকারকে অতিরিক্ত অর্থ ব্যয় করতে হবেনা বলে মনে করে সংশ্লিষ্টরা। রামগড়ে আজকের বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি’র) জন্ম।

মুক্তিযুদ্ধের ১নং সেক্টর ছিলো রামগড়ে। রামগড়ে রয়েছে পৌরসভা, তথ্য অফিস, জেলখানা, পানি উন্নয়ন বোর্ড, কাষ্টম অফিস, পিডব্লিউ অফিস, টিএন্ডটি অফিস, মৎস্য হ্যাচারী, কৃষি গবেষণা কেন্দ্র, হর্টিকালচার সেন্টার, সার্কেল পুলিশ কার্যালয়, ষ্টেডিয়াম, সরকারী-বেসরকারী ৫টি ব্যাংক, ফাজিল মাদ্রাসা, সরকারী ডিগ্রী কলেজ ও ৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতাল। সর্বশেষ বর্তমান সরকারের ঘোষিত রামগড় স্থলবন্দর। বক্তারা আরো বলেন, খাগড়াছড়ি জেলার ৫টি উপজেলা মাটিরাঙ্গা, গুইমারা, রামগড়, লক্ষীছড়ি ও মানিকছড়ি নিয়ে রামগড় জেলা হলে এ এলাকার মানুষ অর্থনৈতিকভাবে সাবলম্বি হওয়ায় পাশাপাশি ব্যাপক উন্নয়ন সাধিত হবে। আর বর্তমান সরকারের প্রশাসনিক বিকেন্দ্রীকরনের চিন্তা ভাবনার কারনে ১৯২০ সালের প্রাচীন মহকুমা শহর রামগড়কে জেলা ঘোষনা করার দাবীর উপযুক্ত সময় এখনই বলে মনে করেন বক্তারা।

সভায় রামগড়কে জেলায় রুপান্তরের দাবীতে ফেষ্টুন, ব্যানার, মানববন্ধন, প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলীপি, সম্ভাব্য আশপাশের উপজেলায় সফর, আলোচনা সভা, সংবাদ সম্মেলন, বাস্তবায়ন কমিটি গঠন, সোসাল মিডিয়াসহ বিভিন্ন প্রচার মাধ্যমে ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা চালানোসহ সংসদ সদস্যের মাধ্যমে জাতীয় সংসদ অধিবেশনে যুক্তিক দাবীটি তুলে ধরার জন্য দাবী জানানোর সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। মতবিনিময় সভায় জনপ্রতিনিধি, গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।