ক্রীড়াজাতীয় সংবাদপাহাড়ের সংবাদশিরোনামস্লাইড নিউজ

লক্ষ্মীছড়ির মনিকা বিশ্ব ফুটবলে আলোচিত এক নাম

ডেস্ক রিপোর্ট: প্রতিপক্ষের খেলোয়াড়দের নাকানি-চুবানি খাইয়ে বল নিয়ন্ত্রণে নেয়া আর রক্ষণ দেয়াল ভেঙে বল জালে পাঠানোয় যতটা দক্ষ মনিকা চাকমা, কথা বলায় ঠিক তার উল্টো। লাজুক স্বভাবের খাগড়াছড়ির এ কিশোরী কোনো প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে বারবার দুইহাতে ঢাকেন লজ্জায় লাল হওয়া মুখ। মনিকার কাছে কথা বলা যেন পৃথিবীর সবচেয়ে কঠিন কাজের একটি।

কথায় কী আসে যায়? একজন ফুটবলারের আসল কাজটি তো করে দেখাতে হয় পায়ে। বাংলাদেশ নারী ফুটবল দলের মিডফিল্ডার মনিকা চাকমা সে কীর্তি করেই এখন বিশ্বজুড়ে আলোচনায়। একদিন আগে শেষ হওয়া বঙ্গমাতা অনূর্ধ্ব-১৯ নারী আন্তর্জাতিক গোল্ডকাপের সেমিফাইনালে মঙ্গোলিয়ার বিরুদ্ধে দর্শনীয় গোল করে হৈচৈ ফেলে দিয়েছেন চারদিকে।

এ চারদিকটা কেবল বাংলাদেশেই নয়, বিশ্বজুড়ে। ফিফার দর্শক জড়িপে সপ্তাহের সেরা গোলের তালিকায় ঢুকে গেছে ৩০ এপ্রিল বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে করা মনিকার গোল। ফিফার ওয়েবসাইটে গোলটি আপলোড করে শিরোনাম দেয়া হয়েছে ‘ম্যাজিক্যাল চাকমা।’

মঙ্গোলিয়ার বিরুদ্ধে করা গোলটি যে ফিফার দর্শক জড়িপে সেরা হয়েছে তা কী জানেন? ‘হ্যা। কিছুক্ষণ আগে আমাকে বলেছেন স্যার (বাফুফের সাধারণ সম্পাদক)’ -জবাব মনিকার। তো কেমন লাগছে আপনার? মনিকা চুপ। ফোনের অন্য প্রান্ত থেকে কোনো কথাই আসছে না। ওই যে, কথা বলায় অপটু। কয়েক সেকেন্ড পর মনিকার জবাব ‘আমি রেকর্ডের জন্য নয়, দেশের জন্য গোল করি। শুনে আমি অনেক খুশি। আগামীতে এমন গোল আরও করতে চাই। মনিকা চাকমার বাড়ি খাগড়াছড়ি জেলার লক্ষ্মীছড়ি উপজেলার মরাচেঙ্গী প্রত্যন্ত এলাকায়। ’-সূত্র: ওয়েবসাইড।