Wednesday , 15 August 2018
লামায় এক ইউপি সদস্যের অত্যাচারে অতিষ্ঠ গ্রামবাসী

লামায় এক ইউপি সদস্যের অত্যাচারে অতিষ্ঠ গ্রামবাসী

লামা (বান্দরবান) প্রতিনিধি: বান্দরবানের লামা উপজেলার সরই ইউনিয়নের ইউপি সদস্য জামাল উদ্দিন পূনর্বাসিত ৬ পরিবারসহ একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জমি দখলে নিতে নানা অত্যাচারের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ৮নং ওয়ার্ড মেম্বার জামাল উদ্দিনের বিরুদ্ধে ভূয়া জাতিয় পরিচয়পত্র বানিয়ে বিশ বছর আগে মৃত জনৈক শাহ জালাল নামে একজনকে বিক্রেতা হিসেবে জীবিত দেখিয়ে জাল দলিল সৃজন করে এসব নীরিহ মানুষের জমি দখলে নিতে পায়তারা করছে। সোমবার ক্ষতিগ্রস্থরা লামা প্রেসক্লাবে সাংবাদিকদের নিকট এসব দূর্দশার কথা বর্ণনা করেন। তারা জানায়, ইউপি সদস্য জামাল উদ্দিনসহ কয়েকজন মিলে মনগড়া কাগজপত্র তৈরি করে দরিদ্র স্বামী পরিত্যাক্তা নারী অসহায় মানুষের জমি জবর দখল করে চলছে। এসব অন্যায় অত্যাচারের বিচারতো তারা পায়ইনা, উল্টো ভূমির প্রকৃত মালিকদেরকে মারধর করে, নানান ধরনের হুমকী দিচ্ছে মেম্বার জামাল উদ্দিন।

স্বামী পরিত্যাক্তা জাহানারা বেগম জানান, মাস খানেক আগে তার সতিনের মেয়ে ও নাতী নাতনীদের নামীয় ভোগদখলীয় জমি দখলের জন্য জামাল মেম্বারগং হামলা করে তাদেরকে রক্তাক্ত জখম করে। হামলার শিকার হয়ে এই মহিলা প্রায় ১ মাস চিকিৎসা নিয়েছে। জামাল মেম্বার প্রভাবশালী হওয়ায় নির্যাতিতরা অত্যাচারের কোন প্রতিকার পাচ্ছে না। নির্যাতিতা সখিনা বেগম জানায়, উক্ত মেম্বার মনগড়া কাগজ দেখিয়ে তার ৪ একর জমি দখল করার জন্য জোর প্রয়োগ করে চলছে। একই কায়দায় পুনর্বাসিত শরীফুলের ৪ একর ও মো: ফিরোজ-এর ২ কানি জমি মেম্বার জামাল উদ্দিনগং জবর দখলের পায়তারা করছেন বলে জানান, ভুক্তভোগি এসব নারী-পুরষ।

লামা উপজেলা সাব কবলা দলিল নং-৫৫১/১৭ মূলে জানাযায়, ৩০৩ নং ডলুছড়ি মৌজাস্থ আর ৬৪০ নং হোল্ডিং-এর আন্দর ৪ একর ৪০ শতক জমির যৌথ ক্রেতা হলেন, মঞ্জুর আলম, মো: মাকছুদুল আলম ও ইউপি সদস্য মোহাম্মদ জামাল উদ্দিন। বিক্রেতা দেখানো হয় মো: শাহ জালাল, পিতা মেহব্বত আলী নামের একজনকে। গ্রামবাসী জানায় দলিলে উল্লেখিত বিক্রেতা শাহ জালাল নামের ওই লোক বেঁেচ নেই, সে বিগত ২০/২৫ বছর আগে মারা যান। দলিলে জা.প.প. নং উল্লেখ রয়েছে, ১১৯৯১৫৫২১৩৫২১। উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানাগেছে, উল্লেখিত নাম্বার সমুহের এক থেকে সাত পর্যন্ত সংখ্যার কোন অস্তিত্ব নেই জাতীয় পরিচয়পত্রের কোন সিরিয়ালে। এদিকে মৃত ব্যক্তিকে জীবিত দেখিয়ে করা সাব কবলা নামজারী দলিল বিগত ১৫ জুন/১৭ইং তারিখে বান্দরবান জেলা প্রশাসক কর্তৃক চুড়ান্ত অনুমোদনের নির্দেশ হয়।এলাকাবাসি জানায় উক্ত দলিল বাতিলের জন্য তারা কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করতে চাইলে, লামা উপজেলার কোন দলিল লেখক এই আবেদন লিখতে রাজি হননি।

এসব ব্যাপারে সরই ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ড মেম্বার জামাল উদ্দিন বলেন, তিনি এধরনের কোন প্রকার জোর জুলুম করেননি। অভিযোগকারীদের সাথে তার জমি নিয়ে কোন ধরণের সীমানা বিরোধ নেই। অপরদিকে সরই ইউনিয়নের আন্দারী জামালপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সভাপতি বাদী হয়ে, জালিয়াতির মাধ্যমে স্কুলের জমি দখলের প্রতিকার চেয়ে লামা উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে একটি অভিযোগ দিয়েছেন। জামাল উদ্দিন মেম্বার আপিলের মাধ্যমে মামলাটি বর্তমানে বান্দরবান জজ কোর্টে নিয়ে যায়। এ নিয়ে জামাল মেম্বারগং ক্ষুদ্ধ হয়ে অসহায় গ্রামবসীর উপর নানানভাবে ভয়ভীতি প্রদর্শন পূর্বক হয়রানী করে চলছে। বর্তমানে অসহায় মানুষেরা জামাল মেম্বারগং আশংকায় ভোগছেন। বিষয়টির প্রতি আইন শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রনকারী সংস্থা নজর দেয়া প্রয়োজন রয়েছে।

Share This:

BIGTheme.net • Free Website Templates - Downlaod Full Themes