পাহাড়ের সংবাদরাঙ্গামাটি সংবাদলংগদুশিরোনামস্লাইড নিউজ

জেলা প্রশাসক পরিদর্শন করে ব্রিজ নির্মাণের আশ্বাস দিলেন

আব্দুর রহিম,(লঙ্গদু) রাঙ্গামাটি: লঙ্গদু উপজেলার করল্যাছড়ি বাজারের পাশে একটি ব্রীজই পারে কয়েকটি গ্রামের মানুষের দুর্ভোগ লাগব করতে। একটি ব্রিজের জন্য চার/পাচটি  গ্রামের মানুষকে ৩/৪ কিলোমিটার পথ ঘুরে বাজারে আসতে হয়। অনেক দিন আগ থেকে করল্যাছড়ি বাজারের উত্তর পাশে একটি ব্রিজ হবে তা শুনে আসছে এলাকার লোকজন। দীর্ঘ দিন পার হলেও দেখা মিলেনি করল্যাছড়ি বাজারের পাশে ব্রিজটি। যার ফলে ঐ সব গ্রামে উৎপাদিত পণ্যাদি বাজার জাত করতে স্থানীয়দের অনেক কষ্ট স্বীকার করতে হয়।

১ নং আটারকছড়া ইউ পি চেয়ারম্যান মঙ্গল কান্তি চাকমা বলেন,অনেক জাগায় এ ব্রিজটির জন্য আবেদন করেছি কিন্তু কোন সাড়া পাচ্ছিনা। তিনি বলেন ডানে আটারকছড়া,করল্যাছড়ি,উত্তর ইয়ারিংছড়ি ও আনসার ক্যাম্প এলাকার জনগনের জন্য এ ব্রিজটি খুবই প্রয়োজন । তা ছাড়াও ঐ গ্রামগুলোর ছেলে- মেয়েরা বিদ্যালয়ে যাতায়াত করতে ও অনেক কষ্ট হয়। অনেক দুরের পথ ঘুরে তাদেরকে বিদ্যালয়ে আসতে হয়।

ঐ এলাকার ইউ পি সদস্য আব্দুর রহমান জানান, এ ব্রিজটির জন্য জেলা পরিষদ, উন্নয়ন বোর্ড, এল,জিইডিসহ বিভিন্ন দপ্তরে আবেদন করেছি এ পর্যন্ত কারো নজর পরেনি, কারো দয়া হয়নি। তিনি বলেন এ ব্রিজটি নির্মাণ করা হলে এলাকায় উৎপাদিত লক্ষ লক্ষ টাকার কাচামাল, ধান, কৃষিপণ্য, বাজার জাত করা সহজ হত। আব্দুর রহমান মেম্বার আরও বলেন, যে চরার উপর আমরা ব্রিজ নির্মাণের আবেদন করছি সে চরায় সারা বছর পানি থাকে। বাঁশের সাকো দিয়ে বিদ্যালয়ের বড় ছেলে মেয়েরা পার হতে পারলেও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অনেক ছেলে মেয়ে বিদ্যালয়ে যেতে পারেনা, ফলে এ এলাকার ছেলে মেয়েরা শিক্ষায় পিছিয়ে পড়ছে।সম্প্রতি করল্যাছড়ি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩য় শ্রেণীর একজন ছাত্রী ঐ সাকো থেকে পানিতে পড়ে যায়। সোভাগ্যক্রমে হাই স্কুলের একজন শিক্ষার্থী তাকে সাথে সাথে তুলে নেয়। যার কারনে সে বেঁচে যায়।

এলাকার অন্যান্য লোকজনের সাথে আলাপ কালে অনেকে ক্ষোভের সাথে বলেন, অনেক জাগায় ব্রিজ কালভাট নির্মাণ করা হয়েছে যা কোন কাজে লাগেনা অথচ, এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান এখানে কোন ব্রিজ হয় না। তারা আরও বলেন মাত্র ১০০ ফুট লাম্বা একটি ব্রিজ বা ফুট ব্রিজ নির্মাণ করা হলে তাদের দুঃখ দূর হয়ে যেত। সম্প্রতি রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসক মাঞ্জারুল মান্নান জায়গাটি পরিদর্শন করে গেছেন এবং ব্রীজটি নির্মাণের আশ্বাস প্রদান করেছেন।

জেলা প্রশাসক এর আশ্বাস ও প্রচেস্থায় এবার ব্রিজটি নিমিত হবে বলে এলাকাবাসী আশাবাদী। তাই এলাকার লোকজন তাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মের শিক্ষা, ব্যবসা বানিজ্য ও এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে এ ব্রিজটি নির্মাণের জন্য জোর দাবী জানিয়েছে।