চট্টগ্রাম সংবাদশিরোনামস্লাইড নিউজ

রাঙ্গুনিয়ায় যুবলীগ নেতাকে পুড়িয়ে মারার ঘটনায় প্রেমিকা আটক

রাঙ্গুনিয়া প্রতিনিধি: রাঙ্গুনিয়া উপজেলা যুবলীগের সাবেক সহ-সভাপতি মো. আবুল হাশেম বাঁচাকে পুড়িয়ে মারার ঘটনায় গত শনিবার তিন সন্তানের জননী জিফু বেগম (৪০) নামের এক মহিলাকে রাঙ্গুনিয়া থানা পুলিশ গ্রেপ্তার করে। প্রেমিক যুবলীগ নেতাকে আমের জুসের সাথে চেতনানাশক ঔষধ মিশিয়ে পান করিয়ে আগুনে পুড়িয়ে নিমর্মভাবে হত্যা করে বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশকে জানায় প্রেমিকা জিফু।

জিফু উপজেলার পৌরসভার ইছাখালী জাকিরাবাদ এলাকার অটোরিক্সা চালক আইয়ুব আলীর স্ত্রী। গতকাল রোববার বিকেলে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী নিয়ে আদালত জিফু বেগমকে জেল হাজতে পাঠান। জানা যায়, ইছামতি গ্রামের নিজ বাড়িতে আগুনে পুড়ে অঙ্গার অবস্থায় মো. আবুল হাশেম বাঁচা মরদেহ গত শুক্রবার পুলিশ উদ্ধার করে। বাহির থেকে তালাবদ্ধ বাড়িতে যুবলীগ নেতার অস্বাভাবিক মৃত্যুতে উপজেলা জুড়ে সর্বত্র কৌতুহল সৃষ্টি হয়। ঘটনার দিন রাতে নিহত আবুল হাশেমের স্ত্রী রাজিয়া সুলতানা ওরফে কুসুম বাদী হয়ে রাঙ্গুনিয়া থানায় মামলা করেন। মামলায় আসামী হিসাবে কারো নাম প্রকাশ করেননি।

হত্যাকান্ডের মুল রহস্য উদযাটনে প্রশাসনের উর্দ্ধতন মহলের নির্দেশে মামলাটি তদন্তের দায়িত্ব ¬পান সিআইডি। গত শনিবার বিকেলে সিআইডি’র পরিদর্শক মিতশ্রী বড়–য়া’র নেতৃত্বে একটি দল ঘটনাস্থলে পরিদর্শন করে বিভিন্ন আলামত সংগ্রহ করে। জিফু বেগম পুলিশকে জানায়, গত কয়েক বছর আগে যুবলীগ নেতা বাঁচার সাথে তার সাথে সম্পর্ক সৃষ্টি হয়। সর্ম্পকের সূত্রধরে একে অপরের খুবই ঘনিষ্ঠ হয়। জিফুকে আবুল হাশেম বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থা থেকে ঋণ নিতে সহায়তা করেন। জিফুর কাছ থেকে খালি স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর ও বেসরকারি ব্যাংকের খালি চেক নেন আবুল হাশেম। খালি স্ট্যাম্প ও চেক ফেরত চাইলে উল্টো ব্ল্যাকমেইলিং করে অনৈতিক সম্পর্ক করার জন্য চাপ প্রয়োগ করতেন আবুল হাশেম। ৩মে বিকালে প্রেমিক আবুল হাশেমের সাথে দেখা করতে জিফুকে ফোন করেন। প্রেমিকের ফোন পেয়ে সন্ধ্যায় জিফু আসেন। এসময় চেতনা নাশক ঘুমের ওষুধ আমের জুসে মিশিয়ে হাশেমকে খাওয়ান। একপর্যায়ে হাশেম অচেতন হয়ে পড়লে জিফু হাশেমের শরীরে আগুন দিয়ে হত্যা করে।

রাঙ্গুনিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইমতিয়াজ মো. আহসানুল কাদের ভূঞার নেতৃত্বে হত্যাকান্ডের ৪৮ ঘন্টার মধ্যে মুল হোতা প্রেমিকা জিফু বেগমকে গ্রেপ্তার এবং নিহত যুবলীগ নেতার ব্যবহৃত ৪টি মোবাইল উদ্ধার করেন।