Monday , 23 July 2018
মরক্কোকে বিদায় করে শেষ আটের পথে পর্তুগাল

মরক্কোকে বিদায় করে শেষ আটের পথে পর্তুগাল

ক্রীড়া ডেস্ক রিপোর্ট: বিশ্বকাপে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে বুধবার ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর রেকর্ড গড়া গোলে আফ্রিকার দেশ মরক্কোকে হারিয়েছে পর্তুগাল। ম্যাচের একেবারে শুরুতে রোনালদোর দেয়া গোল আর শোধ করতে পারেনি মরক্কো। ১-০ গোলে পরাজিত হয়ে বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিয়েছে দলটি। আগের ম্যাচে তারা হেরেছিলো ইরানের কাছে। আগের ম্যাচে স্পেনের সাথে ড্র করা পর্তুগাল এই ম্যাচে পূর্ণ তিন পয়েন্ট নিয়ে এক পা দিয়ে রাখলো শেষ আটে। শেষ ম্যাচে তারা খেলবে ইরানের সাথে।

বুধবার ম্যাচের শুরুতেই আক্রমণ চালায় পর্তুগাল। মাত্র চার মিনিটের সময় গোল আসে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর হেডে। আবারো বিশ্বকাপে রোনালদোর জাদু দেখল দর্শকরা। তৃতীয় মিনিটে কর্নার পায় পর্তুগাল। সামনে থাকা মুতিনহোর কাছে ছোট করে কর্নার করেন সিলভা। বল পেয়ে লম্বা ক্রসে গোলপোস্টের সামনে ফেলেন মুতিনহো। সেখানে অপেক্ষায় ছিলেন পর্তুগালের গোল মেশিন রোনালদো। কিছুটা নিচু হয়ে আসা বলে মাথা নুইয়ে হেড করে বল জালে জড়ান এই সুপারস্টার। এবারের বিশ্বকাপের দুই ম্যাচে এটি তার চতুর্থ গোল। প্রথম ম্যাচে স্পেনের বিরুদ্ধে হ্যাটট্রিক করেছিলেন তিনি। এই গোলের মাধ্যমে পর্তুগিজ কিংবদন্তী ইউসেবিওর এক আসরে বিশ্বকাপে চার ম্যাচের রেকর্ড স্পর্শ করলেন রোনালদো। রোনালদোর অবশ্য এবার লেগেছে মাত্র দুই ম্যাচ।

নয় মিনিটের সময় আবার সুযোগ তৈরি করেছিলেন রোনালদো। বক্সের মাথা থেকে তার ডান পায়ের মাটি কামড়ানো শট সাইডবারের পাশ দিয়ে চলে যায়। গোল খাওয়ার পর খেলার ধার বেড়ে যায় মরক্কোর। ১১ মিনিটের সময় সুযোগ পেয়েছিলো তারাও। গোলপোস্টের সামনে থেকে হেড করেছিলেন মরোক্কোর অধিনায়ক মেহেদী বেনাতিয়া; কিন্তু জুভেন্টাস তারকার হেড করা বলটি দুর্দান্ত প্রচেষ্টায় লুফে নেন পর্তুগিজ গোলরক্ষক। প্রথমার্ধে এক শূন্য গোলে পিছিয়ে বিরতিতে যায় মরক্কো।

দ্বিতীয়ার্ধে বেশ কিছু সুযোগ তৈরি করেছিলো উভয় দল। তবে গোল শোধের জন্য মরক্কো ছিলো মরিয়া। বেশ কয়েকটি দারুণ সুযোগ পেয়েছিলো উত্তর আফ্রিকার দেশটি। কিন্তু ভালো ফিনিশিংয়ের অভাবে গোলে শোধ করতে পারেনি দলটি। দ্বিতীয়ার্ধের ইনজুরি টাইমে আবার গোলের সুযোগ পেয়েছিলেন মেহেদী বেনাতিয়া। এবার বক্সের মধ্য থেকে উড়িয়ে মারেন বাইরে। তবে ম্যাচে বল দখলের দিক থেকে এগিয়ে ছিলো তারা। দ্বিতীয়ার্ধে পর্তুগালও পেয়েছিলো একাধিক সুযোগ। অবশ্য তাতেও গোল ব্যবধান বাড়েনি। শেষ পর্যন্ত ১-০ গোলের জয় নিয়েই তাদের মাঠ ছাড়তে হয়।

ইউসেবিও’র পাশে রোনালদো
প্রথম ম্যাচে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার ড্র আর জার্মানির পরাজয়ের পর থেকেই বলা হচ্ছে, রাশিয়া বিশ্বকাপে ফেবারিটরা সুবিধা করতে পারছে না। এই কথাটা আরো জোড়ালো হয়েছে প্রতিপক্ষের জালে মেসি আর নেইমারের নিস্প্রভ আক্রমণ দেখে। কিন্তু এসব কথা ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর ক্ষেত্রে বেমানান। কারণ শুরু থেকেই রোনালদো প্রতিপক্ষের জালে বল পাঠাচ্ছেন অনেকটা একক কৃতিত্বের সাথে। বুধবার মরক্কোর সাথে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচের ৪ মিনিটের মাথায় কর্ণার থেকে আসা বল দারুণ এক হেডে জালে পাঠিয়ে পর্তুগালকে ১-০ গোলে এগিয়ে দেন।

এই গোলের সাথে সাথে রোনালদোর নাম উঠে গেছে স্বদেশেী কিংবদন্তী ফুটবলার ইউসেবিওর পাশে। কারণ ১৯৬৬ সালে ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে ৪ গোল করেছিলন ইউসেবিও। যা এতোদিন পর্যন্ত পর্তুগালের পক্ষে এক বিশ্বাকাপে সর্বোচ্চ গোল হিসাবে বিবেচিত হতো। রোনালদো রাশিয়া বিশ্বকাপের দ্বিতীয় ম্যাচেই এই রেকর্ড ছুঁয়ে ফেলেছেন।

Share This:

BIGTheme.net • Free Website Templates - Downlaod Full Themes