নানিয়ারচরপাহাড়ের সংবাদরাঙ্গামাটি সংবাদশিরোনামস্লাইড নিউজ

নানিয়ারচরে নিহত আকর্ষণ চাকমা ও সুমন্ত চাকমার লাশ এখনো হাসপাতালের মর্গে

স্টাফ রিপোর্টার: নানিয়ারচরে হত্যাকান্ডের ৪০ ঘন্টা পার হলেও নিহতের লাশ কেউ নিতে আসে নি। যোগাযোগ করেনি কোন স্বজন। সদর হাসপাতালের মর্গে এখনো পড়ে আছে আকর্ষণ চাকমা ও সুমন্ত চাকমার নিথর মৃতদেহ।

পুলিশ জানায়, ২২ সেপ্টেম্বর শনিবার সকালে পোস্টমটেম করা হয়েছে কেউ যদি লাশ নিতে না আসে তাহলে বেওয়ারিশ হিসাবে দাফন করা হবে। পুলিশ বাদি হয়ে মামলা দায়ের করবে বলে জানান, নানিয়ারচর থানার অফিসার্স ইনচার্জ মোঃ আব্দুল লতিফ। এ ঘটনার পর নানিয়ারচর উপজেলায় আঞ্চলিক সংগঠনগুলোর মাঝে অস্থিরতা বিরাজ করছে। স্থানীয় জনগনের চলাচলেও নেমে এসেছে প্রতিবন্ধকতা। প্রয়োজন ছাড়া কেউ ঘর থেকে বের হচ্ছে না।

নানিয়ারচর থানার ওসি মোঃ আব্দুল লতিফ জানান, দূর্গম পাহাড়ি পথ পাড়ি দিয়ে স্থানীয় বাসিন্দাদের সহায়তায় পুলিশ উদ্ধার করা লাশ প্রথমে নানিয়ারচর থানায় এবং পরে বিকেলে হাসপাতাল মর্গে ময়নাতদন্তের জন্য নিয়ে আসা হয়।

শুক্রবার সকালের খবর পাওয়ার পর যখন আমরা দুর্গম পাহাড়ি পথ বেয়ে রাম সুপারী পাড়ায় পৌছায় তখন লাশের কাছে কেউ ছিলো না। লাশ দুটি ঘরের ভিতরে পড়ে ছিলো। পরে আশে পাশে কয়েকজনের কাছে জানতে চাইলে তারা কোন কথা বলতে রাজি হয়নি। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় আমরা লাশ গুলোকে অনেক কষ্টে রাঙ্গামাটি মর্গে নিয়ে আসি। তবে এখনো পর্যন্ত কোন আত্মীয় স্বজন আমাদের সাথে যোগাযোগ করেনি বলে জানিয়েছে নানিয়ারচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ আব্দুল লতিফ।
তিনি বলেন, কেউ লাশ নিতে না আসলে আমরা বেওয়ারিশ লাশ হিসাবে দাফন করে দিবো। আর পুলিশ বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করবো।

উল্লেখ্য গত বৃহস্পতিবার (২০ সেপ্টেম্বর) মধ্যরাত রাঙ্গামাটির নানিয়ারচরে বেতছড়ি-মহালছড়ি সীমান্তবর্তী রামসুপারীপাড়া গ্রামে ইউপিডিএফ মূল প্রসিত গ্রুপ ও জেএসএস সংস্কার গ্রুপের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধের এ ঘটনায় ইউপিডিএফ কর্মী ও কালেক্টর আকর্ষণ চাকমা (৪২) ও সুমন্ত চাকমা (৩৫) নিহত হয়।

এদিকে নিহত ২ ব্যক্তি ইউপিডিএফর কর্মী নয় বলে দাবী করেন নিরন চাকমা স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে বলা হয়, ইউনাইটেড পিপল্স ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ) রাঙ্গামাটি জেলা ইউনিটের সংগঠক সচল চাকমা শুক্রবার ২১ সেপ্টেম্বর দ্বিতীয় দফায় দেওয়া বিবৃতিতে বলেছেন, বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে রাঙ্গামাটির নানিয়াচরের রামসুপারি পাড়ায় জেএসএস