খাগড়াছড়িখাগড়াছড়ি সংবাদপাহাড়ের সংবাদমানিকছড়িশিরোনামস্লাইড নিউজ

মানিকছড়িতে চোর আটক, ৯ গরু উদ্ধার

মানিকছড়ি প্রতিনিধি: খাগড়াছড়ি জেলার মানিকছড়ি উপজেলার তৃণমূলে দীর্ঘদিন ধরে গরু চুরির ঘটনা ঘটলেও চোরচক্ররা ছিল ধরাছোঁয়ার বাহিরে! ফলে উপজেলার গচ্ছাবিল,চেঙ্গুছড়া,ডাইনছড়ি,কালাপানি,যোগ্যাছোলা ও বাটনাতলীতে গরু চুরির ঘটনা চলছিল। সম্প্রতি গচ্ছাবিলের জামতলীর জনৈক ব্যক্তির চারটি গরু চুরির ঘটনায় মানিকছড়ি থানায় অভিযোগ করেন কৃষক মো. আলী আকবর। ফলে পুলিশ বিষয়টি আমলে নিয়ে তদন্ত শুরু করে গত ২৮ সেপ্টেম্বর প্রত্যন্ত জনপদ সালদা পাড়ার গহীন অরণ্যে রহমান কোম্পানীর খামারবাড়ী থেকে ৯টি গরুসহ মো. আবদুর রহমান (৫০)ওরফে রহমান কোম্পানী ও তার সহযোগি মো.রফিক (৪০)কে আটক করতে সক্ষম হয় পুলিশ।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার তৃণমূলে দীর্ঘদিন ধরে গরু চুরির ঘটনায় গচ্ছাবিল, চেঙ্গুছড়া, ডাইনছড়ি, কালাপানি, যোগ্যাছোলা ও বাটনাতলী এলাকায় প্রতিনিয়ত গরু চুরির ঘটনা ঘটছিল। কিন্তু অপরাধীকে কেউ শনাক্ত করতে পারেনি। ফলে অধরাই থেকে গেছে চোরচক্র! সম্প্রতি গচ্ছাবিলের জামতলীর মৃতু. সিরাজ উদ্দীন এর ছেলে মো. আলী আকবরের ৪টি গরু চুরি হয়। ফলে ভোক্তভোগী আলী আকবর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

পুলিশ ঘটনাটিকে আমলে নিয়ে গরু ব্যবসায়ীদের প্রতি নজরদারী বৃদ্ধি করলে গত ২৮ সেপ্টেম্বর উপজেলার প্রত্যন্ত জনপদ সালদা গ্রামের গহীণ অরণের একটি খামার বাড়ীতে একাধিক গরুর সন্ধান পায়। ফলে গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে ওই খামারবাড়ীতে অভিযান চালিয়ে এলাকার চিহ্নিত প্রভাবশালী গরু পাচারকারী মো. আবদুর রহমান (৫০)ওরফে রহমান কোম্পানী ও তার সহযোগি মো.রফিক (৪০)কে ৯টি গরুসহ আটক করে। আটক ব্যক্তিদের ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করলেও গরুর মালিকানা কিংবা গরু ক্রয়ের কোন প্রমান তারা পুলিশকে দিতে ব্যর্থ হয়। ফলে তাদের বিরুদ্ধে চুরির ধারা ৩৮০,৩৮৬ মূলে মামলা রের্কড করা হয়। মামলা নং ৩, তারিখ ২৮.৯.২০১৮্খ্রী। আটক ব্যক্তিদেরকে জেল হাজতে প্রেরণ করেন।

মানিকছড়ি থানার এস.আই এবং মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মো. আবদুল কাদের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, গরু চুরির ঘটনার একটি অভিযোগের ভিত্তিতে সোর্স নিয়োগ পূর্বক সন্দেহভাজন গরু ব্যবসায়ীদের ওপর নজরদারী করতে গিয়ে প্রত্যন্ত জনপদ সালদা গ্রামে রহমান কোম্পানীর খামারবাড়ীতে হাতে-নাতে গরুসহ তাদের আটক করা হয়েছে। ৩০ সেপ্টেম্বর আটক ব্যক্তিদের রিমান্ড চেয়ে আদালতে আবেদন করা হবে।

এদিকে আটক মো. আবদুর রহমান (৫০)ওরফে রহমান কোম্পানীর সাম্প্রতিক উত্থান নিয়ে আলোচনার ঝড় উঠে জনপদে। এলাকার নিরীহ লোকজন বলছে আটক ব্যক্তি প্রকৃতপক্ষে একজন ভূমিদস্যু ও চোর । মানিকছড়ি-রামগড় সীমান্ত জনপদে তার শতাধিক একর টিলা ভূমি রয়েছে। এসব পাহাড়ে খামারবাড়ী বানিয়ে সে চুরি,নারী কেলেংকারীসহ নানা অপকর্ম ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ড করছে। ইতোপূর্বে একাধিকবার নারী কেলেংকারীর ঘটনায় লোকালয়ে তার বিরুদ্ধে বিচার-সালিস হয়েছে। টাকার প্রভাবে তার অপকর্মগুলো স্থানীয়ভাবে সমাধা হলেও এবার চুরির ঘটনায় শেষ পর্যন্ত সে ফেঁসে গেলো।