খাগড়াছড়িখাগড়াছড়ি সংবাদগুইমারাপাহাড়ের সংবাদশিরোনামস্লাইড নিউজ

অবশেষে স্ত্রী হত্যার দায়ে গুইমারায় ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা

স্টাফ রিপোর্টার: খাগড়াছড়ি’র গুইমারা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাগর চৌধুরীর বিরুদ্ধে তার স্ত্রী মাধবী রাণী রায় পিংকিকে হত্যার প্রায় ২৪ঘন্টা পর অবশেষে হত্যার অভিযোগে মামলা নিয়েছে গুইমারা থানা পুলিশ। নিহতের মা মঞ্জু রানী পাল বাদী হয়ে গুইমারা থানায় আসামী সাগর চৌধুরীর বিরুদ্ধে এ মামলা দায়ের করেন। গুইমারা থানার অফিসার ইনচার্জ(তদন্ত) মোঃ সফিকুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। মামলা নং-০৫, তারিখ: ৩০.০৯.২০১৮ইং।

সাগরের পরিবারের পক্ষ থেকে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যার কথা বলা হলেও ফাঁসের কোন চিহ্ন পাওয়া যায় নি। স্বজনদের অভিযোগ, সাগর চৌধুরী তার স্ত্রী মাধবী রাণী রায় পিংকিকে (২৫)নির্যাতন করে হত্যা করেছে। মাটিরাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২৯সেপ্টেম্বর শনিবার দিবাগত রাতে স্ত্রীর মৃতদেহ রেখে পালিয়ে যায় গুইমারা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাগর চৌধুরী। নিহতের শরীরের বিভিন্ন অংশে আঘাত চিহ্ন রয়েছে। এর পর থেকে তার মোবাইল ফোন বন্ধ রয়েছে।

পুলিশ, হাসপাতাল ও স্থানীয় সূত্রগুলো জানায়, গুইমারার দার্জিলিং টিলার বাসিন্দা মৃত নিরঞ্জন চৌধুরীর দ্বিতীয় স্ত্রীর একমাত্র পুত্র ও উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাগর চৌধুরী শনিবার বিকালে স্ত্রী মাধবী রাণী পিংকিকে বেদম মারধর করে মুমূর্ষ অবস্থায় সন্ধ্যার পর মাধবীকে সাগর সহ এক নারী ও ৪/৫জন তাকে মাটিরাঙ্গা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়ার পথেই তার মৃত্যু হয়। পরে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগে স্ত্রীর মৃতদেহ রেখে পালিয়ে যায় সাগর ও তার পরিবারের সদস্যরা। মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখে কর্তব্যরত ডাক্তার আনিসুল হক মাটিরাঙ্গা থানায় খবর দিলে পুলিশ এসে মাধবীর লাশ উদ্ধার করে।

জানা যায়, ফেসবুকের মাধ্যমে পরিচয়ের পর ২০১৭সালের ১০ডিসেম্বর ফেনীর ফুলগাজি উপজেলার সতেশপুর নতুন মুন্সিরহাট গ্রামের মৃত স্বপন কুমার রায়ের কন্যা পিংকির সঙ্গে বিয়ে হয় সাগরের। পিংকি উচ্চ শিক্ষিতা ঢাকায় একটি প্রাইভেট কোম্পানিতে চাকরি করত। স্থানীয়রা জানান, বিয়ের পর থেকে তাদের দুজনের মধ্যে বনিবনা ছিল না। প্রায় সময় সাগর পিংকিকে শারীরিক ভাবে নির্যাতন করত সে। কিছুদিন আগেও অমানুষিকভাবে পিংকিকে নির্যাতন করে সাগর। এ কারণে উচ্চ শিক্ষিতা স্ত্রী পিংকি গুইমারায় স্বামীর বাড়িতে আসতেন না। দেন-দরবার করে সপ্তাহখানেক আগে সাগর তাকে নিয়ে আসে। শনিবার বিকালে দুজনের মধ্যে ঝগড়াঝাটি হয়। এক পর্যায়ে সাগর তাকে বেদম মারধর করে। মাটিরাঙ্গা হাসপাতালে নেওয়ার পথে মারা গেলে সাগরের পরিবার থেকে এলাকায় প্রচার করা হয় পিংকি গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, গলায় ফাঁসের চিহ্ন বা আত্মহত্যার কোন আলামত দেখা যায়নি। তবে তার শরীরে অনেক আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

এদিকে, স্ত্রীর মৃতদেহ রেখে পালিয়ে গা ঢাকা দিয়েছেন ছাত্রলীগ নেতা সাগর। পুলিশ তাকে ধরতে বিভিন্ন স্থানে হানা দিয়েও পাচ্ছে না। রামগড় সার্কেলের সহকারি পুলিশ সুপার সৈয়দ মোঃ ফরহাদ জানান, প্রাথমিক সুরতহাল রিপোর্টে পিংকির শরীরে আঘাতের অনেক চিহ্ন দেখা গেছে। তিনি বলেন, সাগর গা ঢাকা দেওয়ায় পুলিশ তাকে এখনও ধরতে পারেনি। মৃত্যুর প্রায় ১৬ঘন্টা হাসাপাতালে লাশ পড়ে থাকলেও সাগরের পরিবারের পক্ষ থেকে কেউ দেখার জন্যও যায় নাই। বেলা ১১টায় মাধুবীর মা ও মামা ফেনী থেকে এসে লাশ গ্রহণ করে খাগড়াছড়ি জেলা সদর হাসপাতালে ময়না তদন্তের জন্য নিয়ে যায়।

এদিকে গুইমারা থানার অফিসার ইনচার্জ(তদন্ত) সফিকুল ইসলাম জানান, নিহতের মা বাদী হয়ে সাগরের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।