খাগড়াছড়িখাগড়াছড়ি সংবাদপাহাড়ের সংবাদমানিকছড়িশিরোনামস্লাইড নিউজ

টার্কি খামার করে লাভবান মানিকছড়ির জামাল

আবদুল মান্নান,মানিকছড়ি: মো. জামাল উদ্দীন মৃধা(২৮)। ২০১৭ সালের আগস্টে বেসরকারি টেলিভিশন‘চ্যানেল আই’ এর পরিচালক শাইখ সিরাজ এর একটি প্রতিবেদন দেখে জানতে পারেন হাঁস-মুরগী পালনের পাশাপাশি‘টার্কি’ পালনে ব্যাপক সফলতা পাওয়া যায়। ওই প্রতিবেদন দেখে নিজ উদ্যোগে সফলতার স্বপ্নে দু’টি টার্কি ক্রয় করেন,মৃধা। শুরু করেন লালন-পালন। গত এক বছরে টার্কি পালনে ৩ লক্ষাধিক টাকা আয়সহ বর্তমানে ৩শতাধিক টার্কি রয়েছে তাঁর ক্ষুদ্র খামারে।‘টার্কি’র ডিম ও মাংস বাজারজাতকরণে এখনো পর্যাপ্ত গ্রাহক সৃষ্টি না হওয়ায় ব্যবসা সম্প্রসারণ বাধাগ্রস্থ হচ্ছে!

মানিকছড়ি উপজেলার গচ্ছাবিল এলাকার মো.নেছার উদ্দীন মৃধার ছেলে মো. জামাল উদ্দীন মৃধা একজন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী। জীবিকার তাগিদে সে পাহাড়ে ছড়াকঁচু চাষ,আম বাগান,আনারস বাগান সৃজনসহ মৌসুমি ব্যবসা-বানিজ্য ছিল আয়ের একমাত্র উৎস। গত ২০১৭ সালের আগস্টে বেসরকারি টেলিভিশন ‘চ্যানেল আই’ এর পরিচালক শাইখ সিরাজ এর একটি প্রতিবেদন দেখেন মো. জামাল উদ্দীন মৃধা। প্রতিবেদনে শাইখ সিরাজ তুলে ধরেন একজন সফল টার্কি ব্যবসায়ীর সফলতার বাস্তবচিত্র। ওই প্রতিবেদন দেখে মো. জামাল উদ্দীন মৃধা টার্কির সন্ধানে বের হন এবং চট্ট্রগ্রাম থেকে দু’টি টার্কি ক্রয় করেন। ৪ মাস বয়সী একটি টার্কি টানা ৬০ দিন ডিম দিয়েছে। এর পর এক থেকে দেড় মাস পর আবার টানা দু’মাস ডিম দেয়। ও থেকেই মো. জামাল উদ্দীন মৃধা’র সফলতার যাত্রা শুরু।

২ অক্টোবর সকাল ১০টায় সরজমিনে কথা হয় ক্ষুদ্র খামারী মো. জামাল উদ্দীন মৃধার সাথে সে জানায়,মাত্র ২টি টার্কির ডিমে বর্তমানে তাঁর খামারে( ফার্মে) ৩ শতাধিক টার্কি রয়েছে। এর মধ্যে ডিম দিচ্ছে গড়ে ৫০টি। ৩টি মহিলা টার্কির সাথে ১টি পুরুষ টার্কি সংমিশ্রণে রাখা হলে সকল ডিমে শতভাগ বাচ্চা পাওয়া সম্ভব। একটি সুস্থ টার্কি ৩-৪ বছর পর্যন্ত ডিম দেয়। আর ওইসব ডিম মেশিনের মাধ্যমে বাচ্চ ফুটাতে হয়। গত এক বছরে সে ৩ লক্ষ টাকার ব্যবসা হয়েছে। তবে টার্কি সর্ম্পকে এখনো পর্যাপ্ত প্রচারণার অভাব এবং ক্রেতা সংকটে উৎপাদন বাড়ানো যাচ্ছে না। একটি পূণঃবয়স্ক টার্কির গড়ে ওজন ৮-১০ কেজি। মাংস কেজি গড়ে ৫শত টাকা ,ডিম (একটি) ১০০-১২০ টাকা, বাচ্চা (১ মাস বয়সী) ৩০০-৩৫০টাকা। ইতোমধ্যে চট্রগ্রাম, কুমিল্লা, খাগড়াছড়ি, রাঙ্গামাটির বিভিন্ন উপজেলায় ক্ষুদ্র খামারীরা এখান থেকে ডিম ও বাচ্চা সংগ্রহ করেছেন। যোগাযোগের ঠিকানা:- মো. জামাল উদ্দীন মৃধা, গচ্ছাবিল, মানিকছড়ি, খাগড়াছড়ি।