খাগড়াছড়িখাগড়াছড়ি সংবাদপাহাড়ের সংবাদমানিকছড়িশিরোনামস্লাইড নিউজ

সিন্দুকছড়ি জোনের উদ্যোগে বিনামুল্যে চক্ষু শিবির

স্টাফ রিপোর্টার: খাগড়াছড়ি’র মানিকছড়ি উপজেলাধীন মহামুনি রাজবাড়ী হেডম্যান কার্যালয়ে ১৪ফিল্ড রেজিমেন্ট আর্টিলারি সিন্দুকছড়ি জোন, মানিকছড়ি রাজবাড়ি ও লায়ন্স দাতব্য চক্ষু হাসপাতালের আয়োজন ও অর্থায়নে বিনামূল্যে চক্ষুশিবির অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে এলাকার গরিব, অসহায় ও দুস্থ মানুষদের বিনামূল্যে চোখের প্রাথমিক চিকিৎসা, ওষুধ প্রদান ও ছানি পড়া রোগীদের নির্ণয় করা হয়। ছানিপড়া রোগীদের পরবর্তীতে সিন্দুকছড়ি জোনের অর্থায়নে তাদের চট্রগ্রাম লায়ন চক্ষু হাসপাতালে নিয়ে ছানি অপারেশন করানো হবে। ২৫নভেম্বর দিনব্যাপী বিনামুল্যে এ চক্ষু শিবির কর্মসূচির আয়োজন করা হয়।

১৪ফিল্ড রেজিমেন্ট আর্টিলারি সিন্দুকছড়ি জোন অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল রুবায়েত মাহমুদ হাসিব সকালে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে চক্ষু শিবিরের আনুষ্ঠানিক উদ্ধোধন করেন। এসময় তিনি বলেন, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী পার্বত্যাঞ্চলে শান্তি স্থাপনের লক্ষ্যে কাজ করার পাশাপাশি বিভিন্ন আত্মসামাজিক উন্নয়ন করে যাচ্ছে। মানুষের দোড়গোড়ায় সেবা বিশেষ করে গরিব ও অসহায়দের বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা দেওয়াই বড় সার্থকতা। দেশের অন্যান্য এলাকার তুলনায় পার্বত্য এলাকার আধুনিক উন্নত ও বিশেষষ্ণ ডাক্তারের সেবা পায় না। বিধায় আগামী চক্ষু চিকিৎসার পাশাপাশি গাইনী ও থেলাসেমিয়া রোগের উপর বিশেষ্ণ ডাক্তাররের মাধ্যমে বিনামুল্যে চিকিৎসা সেবার আয়োজন করার ঘোষনা দেন তিনি। পাহাড়ে শান্তি, সম্প্রীতি রক্ষার পাশাপাশি হত-দরিদ্র পাহাড়ী-বাঙ্গালীর চিকিৎসা সেবায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনী নিরলস প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখে দেশকে এগিয়ে নিয়ে সকলের সহযোগীতা কামনা করেন জোন কমান্ডার।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, সিন্দুকছড়ি জোনের উপ-অধিনায়ক মেজর তৌহিদ, মানিকছড়ি রাজবাড়ির মেজো কুমার প্রিন্স সুচিংপ্রু, মানিকছড়ি সাবজোন কমান্ডার ক্যাপ্টেন নাজিউর, ক্যাপ্টেন মুফতী মাহমুদ জয়, সিন্দুকছড়ি জোনের আরএমও ক্যাপ্টেন মাহমুদুল হাসান প্রমুখ।

পাহাড়তলী চক্ষু হাসপাতালের সার্জেন্ট সৌমেন তালকদার এবং সিন্দুকছড়ি জোনের আরএমও ক্যাপ্টেন মাহমুদুল হাসানের নেতৃত্বে মেডিকেল টীম সকাল ৯টা থেকে বিকাল পর্যন্ত ৩শ রোগীকে চিকিৎসা সেবা প্রদান করে। চক্ষু চিকিৎসা নিতে এসে কয়েকজন রোগী জানান, বিনামূল্যে চিকিৎসা ক্যাম্পের মাধ্যমে প্রতিবছর গরিব লোকদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন সেনাবাহিনী। এতে গরিব মানুষগুলো অনেক উপকৃত হয়। লায়ন হাসপাতালের সার্জন সোমেন তালুকদারের নেতৃত্বে ৫সদস্যের একটি চক্ষু চিকিৎসক দল সেখানে গরিব ও অসহায় মানুষদের বিনামূল্যে চোখের প্রাথমিক চিকিৎসা ও ওষুধ প্রদানসহ ছানি পড়া রোগীদের নির্ণয়ে কাজ করেন।