পাহাড়ের সংবাদরাঙ্গামাটি সংবাদশিরোনামস্লাইড নিউজ

রাঙামাটির রিজার্ভ বাজার মসজিদ কলোনিতে অগ্নিকাণ্ডে ২ কোটি টাকর ক্ষয়ক্ষতি

স্টাফ রিপোর্টার: রাঙামাটি শহরের রিজার্ভ বাজার মসজিদ কলোনিতে অগ্নিকাণ্ডে অর্ধশতাধিক কাঁচা ঘর পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। রবিবার (১৩ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে ৮টার দিকে চুলার আগুন থেকে অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত ঘটে। আগুন প্রায় আড়াই ঘণ্টা স্থায়ী ছিল। রাঙামাটি ফায়ার সার্ভিসের চারটি এবং কাউখালী ও কাপ্তাইয়ের আরও দুটি ইউনিট এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

রাঙামাটি ফায়ার সার্ভিসের উপ-পরিচালক দিদারুল আলম বলেন, ‘আমরা খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে এসে আগুন নিয়ন্ত্রণের জন্য কাজ শুরু করি। ৬টি ইউনিট আড়াই ঘণ্টা চেষ্টার পরে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয়েছে। প্রায়  ২ কোটি টাকর ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। আগুন নেভাতে রাঙ্গামাটি, কাউখালী ও কাপ্তাইয়ের ফায়ার সার্ভিসের ৩টি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে অংশ নেয়। এছাড়া স্থানীয় লোকজন, সেনাবাহিনী ও পুলিশ আগুন নেভানোর কাজে অংশ নেয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রবিবার সকালে শহরের মসজিদ কলোনী কালিশংকর পাহাড় এলাকার একটি বাসার রান্নঘরের চুলা থেকে আগুনের সুত্রপাত ঘটে। আগুন মুহুর্তের মধ্যে চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ে। আগুনের লেলিহান শিখা এতো বেশী যে স্থাণীয় লোকজন অনেক চেষ্টা করে ও আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে পারেনি। আগুন মুহুর্তের মধ্যে জনগনের চলাচলের রাস্তায় চলে আসায় কোনমতে মানুষ প্রাণ নিয়ে বাড়ীর পিছনের দিক দিয়ে চলে যায়। পরে রাঙ্গামাটি ফায়ার সার্ভিসের লোকজন এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা চালায়। পরে রাঙ্গামাটির কাউখালী ও কাপ্তাই উপজেলার ফায়ার সার্ভিসের আরো ২ টি ইউনিট এসে আগুন নিয়ন্ত্রণের কাজে অংশ গ্রহণ করেন। পরে প্রায় ২ ঘন্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনতে সক্ষম হয়।

অগ্নিকান্ডের সাথে সাথে রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসক এ,কে,এম মামুনুর রশিদ, অগ্নি দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। এ সময় তিনি বলেন, আগুনের খবর পেয়ে কাপ্তাই ও কাউখালীর দুটি ইউনিটকে খবর দিলে তারা এসে আগুন নিয়ন্ত্রণের কাজে লেগে পড়ে। পরে তিনি অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্থদের সান্তনা দেন। বিকালে রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ক্ষতিগ্রস্থ ৭৮ টি পরিবারের মাঝে ২৫ কেজি চাল, নগদ অর্থ, কম্বল ও শুকনো খাবার বিরতন করেন। এছাড়া রাঙ্গামাটির বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবক সংগঠন, রেড ক্রিসেন্টসহ বিভিন্ন সংগঠন ক্ষতিগ্রস্থদের পাশে দাঁড়িয়েছে।