Saturday , 23 June 2018
প্রতিশ্রুতিশীল কণ্ঠশিল্পী টিটু বড়ুয়া

প্রতিশ্রুতিশীল কণ্ঠশিল্পী টিটু বড়ুয়া

তামান্না হক:: বর্তমান চট্টগ্রামে অনেক উদীয়মান শিল্পীর সরব পদচারণায় মুখরিত আমাদের সাংস্কৃতিক অঙ্গন। তেমনি এক প্রতিশ্রুতিশীল কণ্ঠশিল্পী টিটু বড়ুয়া। পিতাঃ উত্তর চট্টলার বিশিষ্ট মৃধংগ বাদক বাবু সুভাষ চন্দ্র বড়ুয়া, মাতাঃ মৃত জ্যোতি রাণী বড়ুয়া, গ্রামঃ গুমানমর্দন, উপজেলাঃ হাটহাজারী, জেলাঃ চট্টগ্রাম।
গ্রামের মেঠো পথ বেয়ে গুন গুন করে গাইতে গাইতে স্কুলে যেতেন। কিংবা ওস্তাদ জগদানন্দ বড়ুয়া, প্রিয়দা রঞ্জন সেন গুপ্ত, কাবেরী সেন গুপ্ত এবং মিহির কুমার নন্দীর হাতে খড়ি বড় ভাই শিল্পী বাবু দোলন বড়ুয়ার অনুপ্রেরণা নিয়ে ছোট বেলা থেকে মফস্বল ও পল্লী এলাকাতে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে ও স্কুলে গান পরিবেশন করে প্রচুর সুনাম অর্জন করেন। তৎকালীন ফটিকছড়ি পাইন্দং উচচ বিদ্যালয়ের প্রধান শিকক্ষ মাদল বড়ুয়ার পরিচালনায় নবাব সিরাজুদৌলা নাটকে সঙ্গীত পরিবেশন করে সকলকে মুগ্ধ করেন। এরপর ওস্তাদ রনজিত বড়ুয়া ও প্রদীপ বড়ুয়ার কাছে কণ্ঠ সঙ্গীতের তালিম এবং তবলা শিক্ষা গ্রহণ করে, নিজের যোগ্যতা ও পরিচয় ফুটিয়ে তুলতে সম হয়েছেন। নিজেকে আরো উঁচু মাপের সঙ্গীত শিল্পী হওয়ার আশায় শ্রদ্ধেয় ওস্তাদ প্রয়াত নীরদ বরণ বড়ুয়ার কাছে দীর্ঘদিন উচচাঙ্গ সঙ্গীতের তালিম গ্রহণ করেন। এবং ওস্তাদ মিহির লালা, ওস্তাদ মনোরঞ্জন বড়ুয়া ও ওস্তাদ অনুপ বড়ুয়া (ছায়ানট ঢাকা) তাদের সহযোগিতা ও আশীর্বাদপুষ্ট হয়ে ‘বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি’, ঢাকায় সরকারি ভাবে বিশেষ প্রশিণ গ্রহণ পূর্বক বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন।
১৯৯০ সালে ডা. নিভাস শর্মার পরিচালনায় উৎপল খেলাঘর আসর’ চট্টগ্রাম অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন। চট্টগ্রাম সেনানিবাসস্থ অফিসার্স কোয়াটারে মেজর মোদ্দাছের, মেজর মাসুদ, মেজর সাইফুল এবং চট্টগ্রাম মেডিকেলের ডা. মমতাজ বেগম, ডা. তাজকিয়া সেলিনা, ডা. ফজলু, ডা. নার্গিস আক্তার, প্রাক্তন এডিএম আনোয়ারুল হক, ড. শহীদুল্লাহ, চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের প্রাক্তন পিও মনোজ বড়ুয়া এর মত ব্যক্তিবগের   ছেলে   মেয়েদের   সঙ্গীতপ্রশিক্ষক হিসেবে তালিম দেন।
১৯৯১ সালে নাজির হাট ডিগ্রি কলেজে শিক্ষা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে দেশাত্মবোধক, রবীন্দ্র সঙ্গীত, নজরুল গীতি প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান অধিকার করেন এবং নব পন্ডিত বৌদ্ধ বিহারে দানোত্তম কঠিন চীবর দানে ফটো সাংবাদিক অনুজ বড়ুয়ার পরিচালনায় উদ্বোধনী সঙ্গীত ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সঙ্গীত পরিবেশন এবং ১৯৯২ সালে বৌদ্ধ যুব পর্ষদের আয়োজনে চট্টগ্রাম বাংলাদেশ বেতারে অধ্যাপক সনজিব বড়ুয়ার উপস্থাপনায়, শিল্পী সমীরণ বড়ুয়ার সঙ্গীত পরিচালনায় ‘অন্ধরাতে বন্ধ দুয়ার খোলো’ আলেখ্য অনুষ্ঠানে সঙ্গীত পরিবেশন করে চট্টগ্রামে পরিচিতি লাভ করেন।
এরপর সঙ্গীত শিক্ষক হিসেবে ‘ফটিকছড়ি সং সেন্টারে’ ও মোবারক হোসেনের পরিচালনায় লক্ষ্মীছড়ি সঙ্গীত বিদ্যালয়ে শিকতা শুরু করেন। মাসী মিসেস গীতা বড়ুয়া ও ডা. জিন্নাত মেরাজ স্বপ্নার সহযোগিতায় ‘লুসেন্ট লায়ন টিউটোওরিয়েল’, ও ‘বৃন্ত- সাংস্কৃতিক অঙ্গন’ এবং বেতার, টেলিভিশনের গ্রন্থনা পরিকল্পনাকারী অনেক প্যাকেজ ও ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান পরিচালক অধ্য রোকেয়া হকের সাথে পরিচয়ের মাধ্যমে ১৯৯৬ সালে ১৯ ডিসেম্বর বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা বিটিভি চট্টগ্রাম কেন্দ্র উদ্বোধনের পরপর বিটিভিতে সৈয়দ জামানের প্রযোজনায় আওলিয়াদের দেশে সঙ্গীত অনুষ্ঠানে অংশ গ্রহণ করেন। বিটিভি চট্টগ্রাম কেন্দ্রে রোকেয়া হকের গ্রন্থনা ও পরিকল্পনায় অনেকগুলো অনুষ্ঠানে এবং চট্টগ্রাম একাডেমির আয়োজনে স্বাধীনতার বই মেলায় বৃন্ত সংগঠনকে নিয়ে আবহ সঙ্গীত ও সঙ্গীত পরিচালনায় টিটু বড়ুয়া অংশ গ্রহণ করেন।
হাটখোলার উদ্যোগে বাচিকশিল্পী আয়েশা হক শিমুর একক আবৃত্তি সন্ধ্যায় এবং ইঞ্জিনিয়ার আবদুল খালেক মিলনায়তন, চট্টগ্রাম প্রেস কাবে ‘আমি তো এসেছি গীতাঞ্জলি ও অগ্নিবীণার থেকে’ একক আবৃত্তি অনুষ্ঠানে আবহ সঙ্গীত পরিবেশনের মাধ্যমে শ্রোতাদের মন জয় করেন। জাতীয় কবি কাজী নজর”ল ইসলামের  মৃত্যু  বার্ষিকী উপলক্ষে সৈয়দজামানের প্রযোজনায় বিশেষ অনুষ্ঠান ‘বুলবুল’ এ সঙ্গীত পরিবেশন করেন। বিটিভি চন্ত্রাম কেন্দ্রের খবর পাঠক ও উপস্থাপকদের নিয়ে বিশেষ অনুষ্ঠান ঈদ ম্যাগাজিন ‘সাত রং’ এ সঙ্গীত পরিচালনা করেন। সঙ্গীত ভুবনে তাঁর পি”য় সঙ্গীত শিল্পী সাদি মোহাম্মদ রেজোয়ানা চৌধুরী বন্যা, সুবীর নন্দী, হেমন্ত মুখপাধ্যায়, অনুপ ঘোষাল, মান্না দে, সাগর সেন, ভূপেন হাজারীকা।
উল্লেখ্য, সৈয়দ মহিউদ্দিন ভান্ডারীর সঙ্গীত পরিচালনায় শিল্পী টিটু বড়ুয়ার সহযোগিতায় মিউজিক এ্যালবাম ‘মজুবাবা অজু ভাঙ্গে না’ প্রকাশিত হয়।
তিনি অনেকের কাছে বিশেষভাবে কৃতজ্ঞ। তাঁদের মধ্যে বিটিভির প্রাক্তন জেনারেল ম্যানেজার শেখ রেয়াজ উদ্দিন বাদশা, সিটিভির প্রাক্তন জেনারেল ম্যানেজার রফিক উদ্দিন আহমেদ, বিটিভির ইএম সৈয়দ জামান, প্রযোজক নাসির উদ্দিন, মামুন, হারেজ, মো. মোমতাজ আবেদিন মোহন এবং বর্তমান বিটিভি চট্টগ্রাম কেন্দ্রের জেনারেল ম্যানেজার মনোজ সেনগুপ্ত, এটিএন মিউজিক ডটকম নির্বাহী পরিচালক সুরজিৎ বড়ুয়া, এটিএন বাংলার ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীদের অংশ গ্রহণে ‘শৈল সমতলের’ প্রযোজক আতিয়ার রহমান ও রোকয়া হক অন্যতম। সূত্র: দৈনিক আজাদী।

Share This:

Leave a Reply

BIGTheme.net • Free Website Templates - Downlaod Full Themes