খাগড়াছড়িখাগড়াছড়ি সংবাদগুইমারাপাহাড়ের সংবাদশিরোনামস্লাইড নিউজ

ক্রেতা-বিক্রেতার উপচেপড়া ভীড় গুইমারা’র পশু হাঁট

শাহ আলম রানা: আর মাত্র ক’দিন পরেই মুসলিম সম্প্রদায়ের প্রধান ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদ-উল-আযহা। ত্যাগের মহিমা ও সংযমের শিক্ষা নিয়ে প্রতি বছরের ন্যায় এবারও মুসলমানদের ঘরে কড়া নাড়তে শুরু করেছে এ উৎসব। ঈদুল ফিতরের প্রধান অনুসঙ্গ আল্লাহকে রাজী খুশি করতে পশু কোরবানী দেয়া।

ইতোমধ্যেই সবাই যার যার সামর্থ্য অনুযায়ী পছন্দের পশুটি ক্রয় করতে ছুটছেন হাট থেকে হাটে। ব্যস্ততা যেন সকলের পিছু ছুটছে। সবার আগে নিজের পছন্দের পশুটি ক্রয় করাই যেন সবার কাছে বড় বিষয়। পবিত্র ঈদুল আযহাকে আমনের রেখে দেশের অন্যান্য স্থানের মত পার্বত্য খাগড়াছড়ি জেলার ঐতিহ্যবাহী গুইমারা বাজারের কোরবানীর পশুর হাট এখন ক্রেতা-বিক্রেতাদের সমাগমে বেশ সরগরম। পুরাদামে চলছে গরু-ছাগলের বিকিকিনি।

জেলার সর্ববৃহৎ এ পশুর হাটে পার্শ্ববর্তী উপজেলার ক্রেতা বিক্রেতা ছাড়াও চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন জেলার সৌখিন ক্রেতারাও আসেন পছন্দের পশু ক্রয় করতে। সাধ ও সাধ্যের মধ্যে কোরবানীর পশু কিনতে ভীড় করেছে স্থানীয়দের পাশাপাশি দূর দূরান্ত থেকে আসা বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার ক্রেতা। সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, মঙ্গল ও শনিবার সাপ্তাহিক হাটে ক্রেতাদের ক্রেতা-বিক্রেতাদের উপচেপড়া ভীড়ে পা রাখায় জায়গা নেয়। গুইমারা বাজার ইজারাদার ক্রেতা-বিক্রেতাদের সুবিধার কথা বিবেচনা করে গুইমারা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে পশুর অস্থায়ী হাট বসানো হয়েছে।

মঙ্গলবার হাটবার দিন জেলার অন্যতম গুইমারা কোরবানীর পশুর হাটে গেলে, হাটের ইজারাদারদের একজন বলেন,”ঈদুল আজাহার দিন যত ঘনিয়ে আসছে তত কোরবানীর বাজার বেশ জমে উঠছে। পশুর দামও এখন পর্যন্ত সহনীয় পর্যায়ে রয়েছে। বাজারে যে চিত্র দেখা গেছে,তাতে কোনো ধরণের সংকট কিংবা পশুর দাম বাড়ানোর সম্ভবনা কম। হাটে কোবানীর পশুর বেচা-কেনা পুরোদমে চলছে। প্রত্যন্ত এলাকার কৃষক,খামারি ও স্থানীয় ব্যবসায়ীরা গরু নিয়ে হাটে আসছেন। আকার ভেদে ৪০ হাজার থেকে ৫লক্ষ টাকায় বিক্রি হচ্ছে গরু এবং ৫হাজার থেকে লক্ষ টাকার মধ্যে ছাগল বিক্রি হচ্ছে।

স্থানীয় দেশী জাতের গরুর জন্য পার্বত্য খাগড়াছড়ি নির্ভরযোগ্য হওয়ায় এবারো বিপুল সংখ্যক কোরবানীর পশু পার্শ্ববর্তী চট্টগ্রাম, ফেনী, কুমিল্লা ও নোয়াখালীসহ সমতলের জেলাগুলোতে প্রতিদিন ট্রাক বোঝাই করে যাচ্ছে বেপারীরা। গরু বেপারীরা জানান, এ অঞ্চলের গরু মোটাতাজা করণে মেডিসিন প্রয়োগ করা হয় না বলে সমতলে পাহাড়ের গরুর চাহিদা বেশি

কোরবানীর পশুর হাটে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। বাজারের নিরাপত্তার রয়েছে পুলিশ সহ বিভিন্ন আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী। বিষয়ে ক্রেতা-বিক্রেতা উভয় সন্তুষ্ট প্রকাশ করেছেন। হাটে জাল নোট সনাক্তকরণে বসানো হয়ে সোনালী ব্যাংকের বুথ। এছাড়াও ছিনতাইকারী ও পকেটমার থেকে সবধানতা অবলম্বনের জন্য মাইকিং করা হচ্ছে। এখন পর্যন্ত কোন ধরনের সমস্যার সৃষ্টি হয়নি।