খাগড়াছড়িখাগড়াছড়ি সংবাদগুইমারাপাহাড়ের সংবাদশিরোনামস্লাইড নিউজ

মিথ্যা ভিত্তিহীন উদ্দেশ্য প্রনোদিত প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ ও সংশ্লিষ্টদের শাস্তি দাবী

পাহাড়ের আলো: গত ১৪ মে-২০২০ইং তারিখে “দৈনিক কালেরকন্ঠ” পত্রিকার অনলাইন সংস্করণে “গুইমারায় শিকলে বাঁধা ভাটা শ্রমিক ব্যবস্থাপক আটক, ১৩মে-২০২০ইং অনলাইন সংবাদ মাধ্যম “পার্বত্য নিউজ” “গুইমারায় লোহার শিকল দিয়ে বাঁধা ভাটার দুই শ্রমিক উদ্ধার, ম্যানেজার আটক” শিরোনামে ১৪ মে-২০২০ইং তারিখে অনলাইন সংবাদ মাধ্যম “চট্টগ্রাম নিউজ” “খাগড়াছড়িতে ইটভাটায় শিকল দিয়ে বাঁধা দুই শ্রমিক উদ্ধার, ম্যানেজার আটক” ১৩মে-২০২০ইং অনলাইন সংবাদ মাধ্যম সাম্প্রতিক দেশকালে“ “আওয়ামীলীগ নেতার ইটভাটায় শ্রমিক নির্যাতন ম্যানেজার আটক” ১৪ মে-২০২০ইং তারিখে অনলাইন পাহাড়ের আলোতে “গুইমারা ইটভাটায় পায়ে শেকল বেঁধে শ্রমিক নির্যাতনের অভিযোগে ম্যানেজারসহ আটক ২” শিরোনাম সহ অন্যান্য সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদটি আমার দৃষ্টিগোচর হয়েছে। ২০মে গুইমারা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মো: জাহাঙ্গীর আলম স্বাক্ষরিত এক প্রেসবার্তায় এ প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

সংবাদটির সত্যতা ও বস্তুনিষ্ঠতা নিয়ে বলার আগে জাতির তৃতীয় চক্ষু কলম সৈনিকের পবিত্র কলম সত্যের বিপরীতে নিজেদের স্বার্থে ও ব্যক্তিগত প্রতিহিংসার প্রতিফলন হিসেবে সাংবাদিকতাকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করে সমাজের প্রতিষ্ঠিত ও সম্মানী মানুষের সম্মান নষ্ট ও চরিত্র হনন করা কতটা সহজ তা উল্লেখিত সংবাদ মাধ্যম গুলোতে প্রকাশিত সংবাদটিই উৎকৃষ্ট উদহারণ।

স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি সাংবাদিক নামধারী কিছু বিএনপি-জামাতের এজেন্ট সাংবাদিকতাকে পুঁজি হিসেবে ব্যবহার করে উদ্দেশ্য প্রনোদিতভাবে আমি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ গুইমারা উপজেলা শাখার সভাপতি ও স্বাধীনতার স্বপক্ষের শক্তি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিষ্ঠিত রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ কে জড়িয়ে যে মিথ্যা-বিভ্রান্তিকর ও প্রতিহিংসা পরায়ন এবং উদ্দেশ্যপ্রনোদিত ভাবে আমাকে ও আমার আস্থা বিশ্বাসের ঠিকানা রাজনৈতিক দল আওয়ামীলীগকে হেয় প্রতিপন্ন করার লক্ষ্যেই এমন সংবাদ প্রকাশ করেছে বলে আমি মনে করি। এ সংবাদে সত্যের লেস মাত্র নাই।

বস্তুত প্রকাশিত সংবাদের সাথে আমার বা আমার রাজনৈতিক দলের কোন সংশ্লিষ্টতা নেই। আমি দীর্ঘদিন যাবৎ শারীরিক ভাবে অসুস্থ। হার্টের সমস্যা নিয়ে দেশের বাহিরে অস্ত্রপাচার ও চিকিৎসার পর বর্তমানে চিকিৎসকের পরামর্শে চলমান মহামারী করোনা পরিস্থিতিতে নিজ বাড়ীতে অবস্থান করছি। প্রকাশিত সংবাদে ভাটার মালিক হিসেবে শুধুমাত্র আমাকে উল্লেখ হলেও এতে এলাকার প্রতিষ্ঠিত স্বনামধন্য ৯জন ব্যবসায়ী রয়েছে যা এলাকার সকলেই অবগত আছে। কিন্তু প্রতিহিংসা পরায়ন হয়ে আমাকে ও আমার রাজনৈতিক দল ও পদকে ব্যবহার করে আমার দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক ক্যারিয়ার ও সামাজিক মর্যাদাকে নষ্ট করার জন্য কু-চক্রি মহল এমন সংবাদ প্রকাশ করেছে।

এ সংবাদে পিছনে কুশিলব হিসেবে এলাকার কিছু সাংবাদিক নামধারী চাঁদাবাজ হিসেবে চিহ্নিত কুচক্রি মহল জড়িতে রয়েছে। স্থানীয় এসব দুষ্টচক্র ইতিপুর্বেও আমাদের অংশীদারী ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে মোটা অংকের চাঁদা দাবী করেছিল। চাঁদা না পেয়ে তারা আমার/আমাদের বিরুদ্ধে নানা কুৎসা, মানহানিকর বক্তব্য প্রদান ও সংবাদ প্রকাশ করে আসছে। বর্তমানে নিজের দল ভারী করতে তারা অন্যান্য উপজেলা ও জেলা সদরের কিছু দোসরের সাহায্য নিয়েছে। কোন সংবাদ পরিবেশন করার ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি বা পক্ষের বক্তব্য নেওয়া প্রয়োজন হলেও প্রকাশিত এসংবাদ পরিবেশন করার সময় কোন সংবাদিক/সংশ্লিষ্ট পত্রিকার সম্পাদক/বার্তা স¤প্দাক আমার বক্তব্য নেয়ার প্রয়োজনবোধ করেনি। তারা আমার/আমাদের সাথে যোগাযোগ করেনিও করেনি। মোবাইল বন্ধ বলে সংবাদে উল্লেখ করা হয়েছে তা স¤্পূর্ণ মিথ্যা। তারা তাদের মনগড়া মিথ্যা একপেশীয় বিভ্রান্তিকর সংবাদ প্রকাশ করেছে শুধুমাত্র নিজেদের স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্যই।

মূলত বাস্তব কথা হল গত ১২মে/২০২০ইং দিবাগত রাতে কুচক্রি এমহলের পুর্ব পরিকল্পনার অংশ হিসেবে জেলার মাটিরাঙ্গা মুসলিমপাড়া এলাকার বাসিন্দা হেলাল মিয়া, পিতাঃ মৃত ফয়েজ বক্সের নেতৃত্বে ১৩/১৪জনের একটি দল আকষ্মিক ভাবে ইট ভাটায় আক্রমণ করে এলোপাথাড়ী হামলা ও ভাংচুর চালায়।

এসময় তারা ভাটায় লুটপাটের চেষ্টা করে ও হেলাল উদ্দিনগং বিভিন্ন প্রকার হুমকী ধমকী প্রদর্শন করছে বলে ব্যবস্থাপক মাহবুব মাধ্যমে মোবাইল ফোনে জানতে পারি। পরে তাদের অপকর্ম ঢাকতে হেলালগং নিজেরা ভাটার অভ্যন্তরে শিকল দিয়ে নিজের ভাইসহ আরেক শ্রমিককে বেঁধে আইন-শৃংখলা বাহিনীর সদস্যদেরকে খবর দিয়ে প্রকৃত ঘটনা ভিন্নখাতে প্রবাহের চেষ্টা করে। হেলাল সহ অপরাপর দোষীদের আটক করে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করলে প্রকৃত রহস্য বেরিয়ে আসবে।

মূলত ইট ভাটার মৌসুম শেষ পর্যায়ে সাংবাদিক নামধারী চাঁদাবাজরা তাদের চাহিদামত চাঁদা না পেয়ে তারা নিজেরাই এধরণের ঘটনার সুত্রপাত করতে পিছন থেকে হেলালগংকে ব্যবহার করে ও তাদেরকে সকল প্রকার সহযোগীতা করে। বস্তুত বর্তমান তথ্য প্রযু্িক্তর যুগে ও আধুনিক সমাজ ব্যবস্থায় শিকল দিয়ে বেঁধে শ্রমিকদের জোর পুর্বক কাজ করানোর ঘটনা কল্প কাহিনীকেও হার মানায়। এধরণের ঘটনা যদি ঘটে থাকে তাহলে স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, মেম্বার-চেয়ারম্যান ও জনপ্রতিনিধিদেরকে না করাটাই প্রমাণ করে এটি মিথ্যা বানোয়াট ও সাজানো নাটক।

সংবাদের কিছু বক্তব্য/কথার আমার মোটেই বোধগম্য নয়। আমার জানামতে ভাটার মালিকায় ৯জন ব্যক্তি থাকলেও সংবাদে আওয়ামীলীগ সভাপতি জাহাঙ্গীর আলমের মালিকানাধীন ভাটা বলে উল্লেখ করা হয়েছে এছাড়াও ২শ্রমিক উদ্ধার ও ব্যবস্থাপককে আটক করে কোর্টে প্রেরণ করা হয়েছে ১৪তারিখে কিন্তু সংবাদের গুইমারা থানার অফিসার ইনচার্জের বক্তব্যকে বিকৃত করে ১৩তারিখ বলে প্রকাশ করা হয়েছে। এবং উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতিকে বাঁচাতে পুলিশের বিরুদ্ধে আতাত করার অভিযোগ রয়েছে। যা তথ্য বিভ্রাট ও সত্য গোপন করার সামিল।

কোন ব্যক্তি অপরাধ করলেও তার রাজনৈতিক দলের বিরুদ্ধে তাদের মিথ্যাচার ও অভিযোগের মুল কারণ কি? এটা দিবালোকের মত সত্য ও প্রতীয়মান যে, জননেত্রী শেখ হাসিনার দক্ষ নেতৃত্বে বর্তমান ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ সরকার দেশে অভাবনীয় উন্নতি ও সাফল্যে উর্ষান্বিত হয়ে স্বাধীনতা বিরোধী বিএনপি-জামাতের সক্রিয় এজেন্ট হিসেবে পরিচিত সাংবাদিক নামধারী দুষ্ট চক্রটি সরকারের নানামুখী উন্নয়ন ও দেশের অর্থনৈতিক চিত্রের আমুল পরিবর্তন দেখে সহ্য করতে না পেরে দেশে ও বহিবিশের্^ আওয়ামীলীগের বিরুদ্ধে পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে মিথ্যাচার অপপ্রচারের অংশ হিসেবে মিথ্যা ভিত্তিহীন সংবাদটি প্রকাশ করে। যেসব নামধারীরা সাংবাদিক সংঘবন্ধ ভাবে এধরনের অপকর্ম করে যাচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে ইতিপূর্বেও চাঁদাবাজী, ধর্ষণ, হত্যা, জুয়াসহ একাধিক মামলা রয়েছে। তাদের অপকর্মকে ডাকতে ও সমাজে নিজেদের আদিপত্য বিস্তার করতে সাংবাদিকতার মত মহান পেশাকে পুজিঁ করে এলাকার জোর জুলুম চালিয়ে যাচ্ছে। তাদের চাঁদাবাজী ও অপকর্মে এলাকাবাসী অতিষ্ঠ। এদের এসব অপকর্মের ও মিথ্য্চাারের আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা এখন সময়ের দাবী হয়ে দাড়িয়েছে।

আমি কুচক্রি মহলের প্রকাশিত মিথ্যা বিভ্রান্তিকর উদ্দেশ্যপ্রনোদিত ও মানহানিকর এধরনের মিথ্যা সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং ধরণের মিথ্যা সংবাদটি প্রত্যাহার করে নেওয়ার দাবী জানাচ্ছি। এরুপ মিথ্য সংবাদ পরিবেশন থেকে বিরত থাকার আহবান জানানোর পাশাপাশি ভবিষ্যতে এধরণের সংবাদ প্রকাশ করলে আইনগত কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের হুশিয়ারী উচ্চারণ করছি। সাংবাদিকদের পবিত্র কলম সমাজের অন্যায় অনিয়ম ও অসামঞ্জস্যতার বিরুদ্ধে ব্যবহার করলে দেশ জাতি ও সমাজ উপকৃত হবে বলে আমি মনে করি। কিন্তু বিকৃত মস্তিকের এসব সাংবাদিক নামধারীদের মিথ্যা তথ্যে ব্যক্তি, পরিবার ও সমাজ সহ জাতীয় জীবনে চরম বিশৃংখলা সৃষ্টি হতে পারে বিধায় এসব ব্যক্তিদের দমনে বাংলাদেশের প্রচলিত আইনে ব্যবস্থা গ্রহণ করার জোর দাবী জানাচ্ছি।

উল্লেখ্য যে, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের বিরুদ্ধে পূর্ব পরিকল্পিত মিথ্যা ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্য প্রনোদিত সংবাদ পরিবেশন করে দলীয় ভাবমুর্তি ক্ষুন্ন ও সুনাম নষ্টসহ দেশ বিরোধী কর্মকান্ডে জড়িতদের ব্যাপারে উপজেলা আওয়ামীলীগের দলীয় সভায় সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে।