অপহৃত তিন বাঙ্গালীকে উদ্ধারের দাবীতে খাগড়াছড়িতে সকাল সন্ধ্যা হরতাল পালিত

স্টাফ রিপোর্টার: মহালছড়ি উপজেলার মাইসছড়ি থেকে অপহৃত মাটিরাঙ্গার তিন বাঙ্গালী ক্ষুদ্র কাঠ ব্যবসায়ী ও পিকাপ ড্রাইবারকে অক্ষত অবস্থায় উদ্ধারের দাবীতে পার

শ্রীমতি নন্দা ত্রিপুরার প্রয়াণে খাগড়াছড়ি পাজেপ চেয়ারম্যানে’র শোক
লক্ষ্মীছড়িতে ব্রীজের গার্ডারের কাজের সময় বিদ্যুৎপৃষ্ট হয়ে এক শ্রমিকের মৃত্যু বিস্তারিত আসছে…
খাগড়াছড়িতে আ.লীগের প্রদীপ প্রজ্বলন ও নীরবতা পালন

স্টাফ রিপোর্টার: মহালছড়ি উপজেলার মাইসছড়ি থেকে অপহৃত মাটিরাঙ্গার তিন বাঙ্গালী ক্ষুদ্র কাঠ ব্যবসায়ী ও পিকাপ ড্রাইবারকে অক্ষত অবস্থায় উদ্ধারের দাবীতে পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদের ডাকে খাগড়াছড়িতে সকাল সন্ধ্যা হরতাল পালিত হয়েছে। ২৩ এপ্রিল ডাকা হরতালের কারণে জেলার অভ্যন্তরীন ও দুরপাল্লার সড়কে সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ ছিলো। ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা গুটিকয়েক নৈশ বাস পুলিশ প্রহরায় শহরের প্রবেশ করলেও জেলা শহরে সীমিত সংখ্যক ব্যাটারী চালিত টমটম, রিক্সা চলাচল করতে দেখা গেছে।

হরতালের সমর্থনে জেলার সর্বত্র পিকেটিং করেছে সংগঠনটি নেতা কর্মীরা । জেলার গুরুত্বপুর্ণ স্থানে ও বিভিন্ন উপজেলায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েনের পাশাপাশি দেখা গেছে সেনাবাহিনী ও বিজির টহল গাড়িও। এটি খাগড়াছড়ি জেলায় স¥রণকালের সবচেয়ে কঠোর হরতাল বলেও মন্তব্য করেছেন অনেকে।
গাধারন যাত্রীদেও অনেককে পায়ে হেটে গন্তব্য যেতে দেখা গেলেও স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসার ছাত্র-ছাত্রীরা ছিলো হরতালের আওতামুক্ত। এদিকে আজকের হরতাল কর্মসূচী শান্তিপূর্নভাবে পালন করায় ও সর্বাতœক সহযোগিতা করায় খাগড়াছড়িবাসী তথা সংগঠনটির সকল পর্যায়ের নেতাকর্মী ও সড়ক পরিবহন মালিক-শ্রমিক, প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানিয়েছেন পার্বত্য বাঙ্গালী ছাত্রপরিষদের খাগড়াছড়ি জেলা সভাপতি প্রকৌশলী লোকমান হোসেন।

এছাড়া সংগঠনটির পক্ষ হতে আগামীতে আর কোন কর্মসূচী আছে কি না জানতে চাইলে কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী শাহাদাত ফরাজী সাকিব জানিয়েছেন, অপহৃত ৩ বাঙ্গালীকে উদ্ধারের দাবিতে আমরা সংগটনের পক্ষ হতে প্রশাসনকে আগামী ৭২ ঘন্টা সময় বেধেঁ দিয়েছি এ সময়ের মধ্য তাদের উদ্ধার করা না হলে আগামী ৭২ ঘন্টা পর পার্বত্যবাসীকে সাথে নিয়ে হরতাল-অবরোধের মতো লাগাতর কর্মসূচী দিয়ে পার্বত্য চট্টগ্রামকে অচল করে দেয়া হবে।

গত শুক্রবার খাগড়াছড়ি প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে পরিবারগুলোর পক্ষ থেকে দাবীকৃত মুক্তিপণ পরিশোধের কথা জানানো হয়। এর পরও অপহৃতরা মুক্তি না পাওয়ায় পিকআপ ড্রাইভার বাহার মিয়ার স্ত্রী তহুরা বেগম কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন এবং তার স্বামীর জীবন ভিক্ষার দাবী জানান।

উল্লেখ্য, গত ১৬ এপ্রিল মহালছড়ি উপজেলার মাইসছড়ি এলাকায় কাঠ কিনতে গিয়ে নিখোঁজ হন মাটিরাঙা উপজেলার তিন যুবক। নিখোঁজের ৮দিন অতিবাহিত হলেও এখনও পর্যন্ত তাদের কোন সন্ধান মেলেনি।