খাগড়াছড়ি সংবাদপাহাড়ের সংবাদশিরোনামস্লাইড নিউজ

খাগড়াছড়িতে নানা বাধা উপেক্ষা করে বিএনপির সমাবেশ ও ডিসিকে স্মারকলিপি

স্টাফ রিপোর্টার: নানা ভয়-ভীতি ও বাধা উপেক্ষা করে জেলা প্রশাসকের বরাবরে স্মারকলিপি প্রদানের মধ্য দিয়ে সমাবেশ কর্মসূচি পালন করেছে খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপি ও অঙ্গসংগঠন।

৩ অক্টোবর বুধবার বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি, সরকারের পদত্যাগ ও নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকার গঠনের দাবীতে জেলা বিএনপির নেতৃবৃন্দ জেলা প্রশাসক মো: শহিদুল ইসলামের কাছে স্মারকলিপি প্রদান করে। পরে শহরের মিল্লাত চত্বরে সমাবেশ করে বিএনপি। এর আগে পথে পথে তল্লাশি চৌকি বসিয়ে এবং সরকারি দলীয় লোকজনের বিক্ষিপ্ত হামলা উপেক্ষা করেই সমাবেশ ও খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি প্রদান করেছে তারা। বিভিন্নস্থানে হামলায় অন্তত ১০ বিএনপি নেতাকর্মী আহত হয়েছে বলে অভিযোগ করা হয়।

সমাবেশে বক্তারা অভিযোগ করেন, বিএনপির কর্মসূচি বানচাল করতে মঙ্গলবার রাত থেকে জেলার বিভিন্ন উপজেলায় বিএনপির নেতাকর্মীদের বাড়ী-ঘরে হামলা শুরু হয়। বুধবার সকাল থেকে খাগড়াছড়ি প্রবেশমুখে বিভিন্ন পয়েন্টে তল্লাসী চৌকি বসিয়ে নেতাকর্মীদের মারধর করা হয়। এতে করে অন্তত ১০ নেতাকর্মী আহত হয়। কোথাও কোথাও পুলিশও তল্লাসী চৌকি বসিয়ে নেতাকর্মীদের সমাবেশে আসতে বাধা দেয় ও হয়রানী করে। বক্তারা দলীয় কার্যালয়ের সামনের সমাবেশে পুলিশের বাধা ও প্রশাসনের সহযোগিতায় সরকার দলীয় লোকজন পথে পথে তল্লাসী চৌকি বসিয়ে বিএনপির নেতাকর্মীদের হামলা ও মারধরের ঘটনায় নিন্দা জানান ।

সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি প্রবীন চন্দ্র চাকমা, সহ-সভাপতি আবু ইউসুফ চৌধুরী, জেলা যুবদলের সভাপতি মাহবুব আলম সবুজ, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি মো. সাহেদ হোসেন সুমন ও জেলা স্বেচ্ছাাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক মো. সাগর নোমান সহ প্রমুখ।

খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আ. রব রাজা’র পরিচালনায় আয়োজিত সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি কংচাইরী মাষ্টার, বেলাল হোসেন, মংসাথোইয় চৌধুরী, অনিমেষ দেওয়ান নন্দিত, মোসলেম উদ্দিন চেয়ারম্যান, ক্ষেত্র মোহন রোয়াজা, যুগ্ম-সম্পাদক এ্যড আঃ মালেক মিন্টু, অনিমেষ চাকমা রিংকু, সাংগঠনিক সম্পাদক এম এন আফসার, ক্ষনি রঞ্জন ত্রিপুরা, জেলা মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদীকা কুহেলী দেওয়ান, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহিম খলিল, জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক জাহেদুল আলম, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি মোঃ নজরুল ইসলাম, সদর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো. মফিজুর রহমান, সদর পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জহির আহমেদ, জেলা কৃষক দলের সভাপতি গফুর আহমেদ তালুকদার, জেলা তাঁতী দলের সভাপতি মো. আলমগীর মিয়া, জেলা বাস্তুহারা দলের সভাপতি মো. নুরুল আলম, জেলা মৎস্যজীবি দলের সাধারণ সম্পাদক মো. রিয়াসদ, জেলা শ্রমিক দলের সাধারন সম্পাদক মো. রোকন চৌধুরীসহ বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। এর আগে খণ্ড খণ্ড মিছিল নিয়ে নেতাকর্মীরা মিল্লাত চত্বরে জমায়েত হয়।

এদিকে শাসকদলের বাধা-বিপত্তি উপেক্ষা সমাবেশ সফল করায় জেলাবাসীকে অভিনন্দন জানিয়েছেন, খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য ওয়াদুদ ভূইয়া। একই সাথে জেলার বিভিন্ন স্থানে তল্লাসী চৌকি বসিয়ে সমাবেশগামী নেতাকর্মীদের মারধরের ঘটনায় নিন্দা জানান তিনি। বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল খাগড়াছড়ি জেলার দপ্তর সম্পাদক মো: আবু তালেব স্বাক্ষরিত এক প্রেসবার্তায় এ খবর দেয়া হয়।

ওয়াদুদ ভূইয়া বলেন, বেগম খালেদা জিয়া’র মুক্তি,সরকারের পদত্যাগ ও নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকারের দাবীতে জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারক-লিপি প্রদান শেষে ও পৌর শাপলা চত্বরে খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপি সমাবেশ করার কথা ছিল। কিন্তু প্রশাসনের বাধা ও চাপের কারনে জেলা বিএনপি দলীয় কার্যালয়ের সামনে সমাবেশ করতে চাইলে সেখানেও বাধা দেওয়া হয়। ফলে নেতাকর্মীদের নিরাপত্তার কথা চিন্তা জেলা শহরের মিল্লাত চত্বরে সমাবেশের আয়োজন করা হয়।

এ দিকে কর্মসূচীকে কেন্দ্র করে গতকাল(মঙ্গলবার) রাত থেকে সরকার দলীয় লোক আজকের সমাবেশ পন্ড করার জন্য জেলার বিভিন্ন উপজেলায় বিএনপির বাড়ী-ঘরে হামলা ও ভাংচুর চালায়। আজ সকাল থেকে খাগড়াছড়ি জেলা শহরে প্রবেশমুখে সরকারী দল লোকজন তল্লাসি চৌকি বসিয়ে বিএনপির নেতাকর্মীদের মারধর করা হয়। তা সত্বেও নেতাকর্মীদের পাশাপাশি সাধারন মানুষও স্বত:স্ফূতভাবে উপস্থিতি ছিল লক্ষনীয়। সমাবেশ সফল করতে সহযোগিতা করায় সাংবাদিক সমাজ ও প্রশাসনের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেছে জেলা বিএনপি।