গুইমারাতে বিজয় দিবসে চলে নানা অনুষ্ঠান

মোঃ শাহ আলম: যথাযোগ্য মর্যাদায় শ্রদ্ধা আর ভালবাসায় বাঙ্গালী জাতি পালন করছে ৪৭তম মহান বিজয় দিবস। খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলার গুইমারা উপজেলা প্রশাসন, ক্ষমতা

কনকনে শীতের রাতে কম্বল দিতে গ্রামে ছুটে গেলেন মাটিরাঙ্গার ইউএনও
সামান্য বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে তলিয়ে যায় মহালছড়ি কলেজ, বন্ধ হয় সড়ক যোগাযোগ
রাত পোহালেই খাগড়াছড়ি জেলা আওয়ামীলীগের সম্মেলন

মোঃ শাহ আলম: যথাযোগ্য মর্যাদায় শ্রদ্ধা আর ভালবাসায় বাঙ্গালী জাতি পালন করছে ৪৭তম মহান বিজয় দিবস। খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলার গুইমারা উপজেলা প্রশাসন, ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দল , বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন দিবসটি উপলক্ষে নানা কর্মসুচী গ্রহণ করেছে। গুইমারা উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্যদিয়ে দিবসটি উদযাপিত হয়।

১৬ডিসেম্বর রবিবার বিজয় দিবসের প্রতুষ্যে ৩১বার তোপধ্বনীর মধ্য দিয়ে শুরু হয় দিবসের আনুষ্ঠানিকতা। এরপর গুইমারা উপজেলা চেয়ারম্যান উশ্যেপ্রু মারমা এবং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পঙ্কজ বড়ুয়া মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে নিয়ে ভোর শহীধ বেদীতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করে শ্রদ্ধা জানান জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান মুক্তিযোদ্ধাদের। গুইমারা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ড, গুইমারা উপজেলা আওয়ামীলীগ ও সকল সহযোগী সংগঠন, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)গুইমারা উপজেলা শাখাসহ বিভিন্ন জাতীয় রাজনৈতিক দল ছাড়াও সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন, স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসার পক্ষ থেকে শহীদদের শ্রদ্ধা নিবেদনের উদ্দেশ্যে শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাঞ্জলি প্রদান করেন।

সকাল ৯টায় গুইমারা মডেল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে বিজয় দিবসের আনুষ্ঠানিক জাতীয় সংগীতের সাথে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। পুলিশ, আনসার, ভিডিপি, গ্রাম পুলিশ, গুইমারা কলেজ, গুইমারা মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের সমন্বয়ে একটি চৌকষ দলের কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠিত হয়। গুইমারা থানার উপ-পুলিশ পরিদর্শক মনোজ কুমারের নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত প্যারেডে সালাম গ্রহণ করেন গুইমারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পঙ্কজ বড়ুয়া।

বেলা ১১.৩০টায় গুইমারা উপজেলা পরিষদের সম্মেলন কক্ষে শহীদ পরিবার ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মাননা প্রদান করা হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পঙ্কজ বড়–য়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মাননা অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, গুইমারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বিদ্যুৎ কুমার বড়ুয়া, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ঝর্ণা ত্রিপুরা, গুইমারা উপজেলা আওয়ামীলীর সভাপতি মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান মেমং মারমা, হাফছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান চাইথোয়াই চৌধুরী প্রমুখ।

আর আগে বিজয় দিবস উপলক্ষে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের নিয়ে ডিসপ্লে, রচনা প্রতিযোগীতা, চিত্রাংকন, সহ বিভিন্ন ক্রীড়া প্রতিযোগীতার আয়োজন করা হয়। বিকেলে গুইমারা মডেল সরকারী হাইস্কুল মাঠে বিজয় দিবসের প্রীতি ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়।

সন্ধ্যায় গুইমারা মডেল সরকারী হাইস্কুল মাঠে আয়োজন করা হয় আলোচনা সভা,পুরস্কার বিতরণী ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের। খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। প্রধান অতিথির বক্তব্যে কংজরী চৌধুরী বলেন, মহান বিজয় দিবস আমাদের শ্রেষ্ঠ অর্জণ ও মুক্তিযোদ্ধারা জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান। দেশের দামাল ছেলেরা বুকের তাজা রক্ত বিলিয়ে দিয়ে দেশকে স্বাধীন করেছে। বর্তমানে বাংলাদেশ একটি উন্নত সমৃদ্ধ দেশের কাতারে স্থান পেতে যাচ্ছে। স্বাধীনতার সুফল এদেশের মানুষের দুয়ারে পৌছাতে কাজ করছে সরকার। এসময় তিনি দেশের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখার উপর গুরুত্বারোপ করেন।

গুইমারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পঙ্কজ বড়ুয়া সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ১৪ফিল্ড রেজিমেন্ট আর্টিলারী সিন্দুকছড়ি জোন অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল রুবায়েত মাহমুদ হাসিব, গুইমারা উপজেলা চেয়ারম্যান উশ্যেপ্রু মারমা, গুইমারা উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান মেমং মারমা, গুইমারা থানার অফিসার ইনচার্জ বিদ্যুৎ কুমার বড়ুয়া। এছাড়াও অনুষ্ঠানে গুইমারা উপজেলা প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তর প্রধান, জনপ্রতিনিধি হেডম্যান-কারবারী এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

এসময় ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগীতার বিজয়ী, বিজয় দিবস উদযাপনের বিভিন্ন উপ-কমিটির সদস্যদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন প্রধান অতিথি ও আমন্ত্রিত অতিথি বৃন্দ। পরে স্থানীয়, ঢাকা ও চট্টগ্রাম থেকে আগত শিল্পীদের অংশগ্রহণে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।