গুইমারাতে মংসাজাই চৌধুরী’র স্মৃতি ভলিবল ও ব্যাটমিন্টন টুর্নামেন্ট শুরু

মোঃ শাহ আলম, গুইমারা: পার্বত্য শান্তি চুক্তির বাস্তবায়নের অন্যতম সদস্য, গুইমারা-হাফছড়ি ইউপি’র সাবেক চেয়ারম্যান, বর্তমান খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের

মহালছড়িতে এক দৃষ্টিপ্রতিবন্ধি পরিবারের পাশে চেয়ারম্যান বাপ্পী খীসা
বর্মার অবর্তমানে ইউপিডিএফ গণতান্ত্রিক দল পরিচালিত হবে যেভাবে
মহালছড়িতে স্থগিত হওয়া একটি ভোট কেন্দ্রে ভোট গ্রহন ৩০ ডিসেম্বর

মোঃ শাহ আলম, গুইমারা: পার্বত্য শান্তি চুক্তির বাস্তবায়নের অন্যতম সদস্য, গুইমারা-হাফছড়ি ইউপি’র সাবেক চেয়ারম্যান, বর্তমান খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরীর পিতা প্রয়াত মংসাজাই চৌধুরী অপহরণের ৩০বছর পূর্তিতে খাগড়াছড়ি’র গুইমারাতে মারমা উন্নয়ন সংসদ গুইমারা শাখার উদ্যোগে স্মরণ সভা, শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ, ধর্মীয় অনুষ্ঠান নানা কর্মসুচীর মধ্য দিয়ে প্রয়াত মংসাজাই চৌধুরীর ৩০তম মৃত্যু বার্ষিকী পালিত হয়েছে।

১৩জানুয়ারী রবিবার সকালে গুইমারা উপজেলার বাজার চৌধুরীপাড়াতে কংজরী চৌধুরীর বাসভবনের অনুষ্ঠিত শোক সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, প্রয়াত মংসাজাই চৌধুরীর একমাত্র সন্তান ও জেলা আওয়ামীলীগ সহ-সভাপতি এবং খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী। সুইমং মারমার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত স্মরণ সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, মারমা উন্নয়ন সংসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মংপ্রু চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ সদস্য মংসুইপ্রু চৌধুরী অপু, মানিকছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান ¤্রাগ্য মারমা, সাবেক গুইমারা ইউপি চেয়ারম্যান মংহলাপ্রু চৌধুরী, গুইমারা উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর ইউপি চেয়ারম্যান মেমং মারমা প্রমুখ।

এসময় প্রধান অতিথির বক্তব্যে পাজেপ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী বলেন, পার্বত্যাঞ্চলের বর্তমান শান্তি ও উন্নয়নের পেছনে রয়েছে একটি সুদীর্ঘ ত্যাগের ইতিহাস। শান্তিচুক্তির বাস্তবায়ন করতে গিয়েই আমার পিতাকে বিপদগামী সন্ত্রাসীরা অপহরণ করে। মংসাজাই চৌধুরীর মত অনেক গুণীজনের আত্মত্যাগের মধ্য দিয়ে পার্বত্য চট্টগ্রামের উন্নয়ন ও শান্তির ধারা প্রবাহিত হচ্ছে। শান্তি ও উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে সকলের সহযোগীতা কামনা করেন তিনি। পরে শীতার্তদের মাঝে শীত বস্ত্র বিতরণ করেন তিনি।

অপর দিকে, ১৩জানুয়ারী বিকেলে প্রয়াত মংসাজাই চৌধুরীর ৩০তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ভলিবল টুর্নামেন্ট’১৯খ্রিঃ, সন্ধ্যায় ব্যাটমিন্টন টুর্নামেন্ট গুইমারা সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় ও হাসপাতাল মাঠে শুরু হয়েছে। খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে টুর্নামেন্টের শুভ সুচনা করেন। এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, মারমা উন্নয়ন সংসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মংপ্রু চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ সদস্য মংসুইপ্রু চৌধুরী অপু, মানিকছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান ম্রাগ্য মারমা, গুইমারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার পঙ্কজ বড়ুয়া, গুইমারা উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর ইউপি চেয়ারম্যান মেমং মারমা, গুইমারা সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সুশীল রঞ্জন পাল প্রমুখ।

এসময় বক্তারা বলেন, বর্তমানে যুব সমাজে যে নৈতিক অবক্ষয় ঘটছে তা থেকে উত্তরণের জন্য খেলাধুলার বিকল্প নাই। নিয়মিত খেলাধুলা যুব সমাজকে নৈতিক অবক্ষয়ের হাত থেকে রক্ষা করে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকার শিক্ষার পাশাপাশি দেশ ব্যাপী খেলাধুলা প্রসার ঘটানোর লক্ষ্যে নানা কর্মসুচী গ্রহণ করেছে। তিনি আরো বলেন, সন্ত্রাস নৈরাজ্য কখনও জাতি বা দেশের কল্যাণ ও উন্নয়ন করতে পারে না, আর ক্রীড়ামোধিরা কখনো সন্ত্রাস ও নৈরাজ্য করতে পারে না।
প্রয়াত মংসাজাই চৌধুরীকে আধুনিক গুইমারা রুপকার এলাকার কৃর্তি সন্তান ও পার্বত্য চট্টগ্রামের শান্তি সমৃদ্ধি ও উন্নয়নের রুপকার এবং সফল সমাজ কর্মী হিসেবে উল্লেখ করে তার স্মৃতির স্মরণে এবং এলাকার ক্রীড়াঙ্গণে নতুন মাত্রা যোগ করে জাতীয় মানের খেলোয়াড় তৈরীর করার জন্য এ টুর্নামেন্টের আয়োজন করা হয়েছে বলে জানান।

প্রসঙ্গত: পার্বত্য শান্তি চুক্তির বাস্তবায়নের অন্যতম সদস্য, গুইমারা-হাফছড়ি ইউপি’র সাবেক চেয়ারম্যান, বর্তমান খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরীর পিতা মংসাজাই চৌধুরীকে ১৯৮৯ইং সালের ১৩জানুয়ারী গভীর নাতে সন্ত্রাসীরা অপহরণের নিজ বাসভবন থেকে অপহরণ করে নিয়ে যায়।