খাগড়াছড়িখাগড়াছড়ি সংবাদগুইমারাপাহাড়ের সংবাদশিরোনামস্লাইড নিউজ

গুইমারাতে মেসার্স শহিদ উল্ল্যাহ ব্রিকস্ ম্যানুফ্যাকচারিং ৬০হাজার টাকা জরিমানা

স্টাফ রিপোর্টার: অবৈধ ও বেআইনী বিভিন্ন কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে খাগড়াছড়ি’র গুইমারা উপজেলা প্রশাসনের ধারাবাহিক ভ্রাম্যমান আদালতের অংশ হিসেবে উপজেলার ইমারা আমতলীপাড়াস্থ মেসার্স শহিদ উল্ল্যাহ ব্রিকস্ ম্যানুফ্যাকচারিং  নামক অবৈধ ও প্রশাসনের অনুমোদনহীন ইটভাটায় অভিযান চালিয়ে ৬০হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেছে ভ্রাম্যমান আদালত।

৭মে রবিবার দুপুরে ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও গুইমারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পঙ্কজ বড়ুয়ার নেতৃত্বে ভ্রাম্যমান অনুমোদন ও ছাড়পত্র বিহীন ইট ভাটা স্থাপন, অবৈধভাবে কাট পোড়ানো, পরিবেশ দুষণ সহ “ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থাপন নিয়ন্ত্রণ আইন ২০১০ এর ৪ধারা” লংঘন করার অপরাধে রামগড় উপজেলার বাসিন্দা মোঃ শহীদ উল্ল্যাহ মালিকানাধীন মেসার্স শহিদ উল্ল্যাহ ব্রিকস্ ম্যানুফ্যাকচারিং নামের অবৈধ ইট ভাটাকে ৬০হাজার টাকা জরিমানা করে তাৎক্ষনিক তা আদায় করা হয়। এসময় ভাটার অভ্যন্তরে প্রচুর পরিমাণে অবৈধভাবে জ্বালানি কাঠ মজুর ও শিশুদের দিয়ে ইট ভাটায় ঝুকিপুর্ণ কাজ করার প্রমাণ পাওয়া যায়। অভিযান চলাকালে ইটভাটার মালিক মোঃ শহিদ উল্ল্যাহকে পাওয়া যায়নি।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও গুইমারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পঙ্কজ বড়ুয়া জানান, উপজেলার অনুমোদনবিহীন সকল ইটভাটায় অভিযান চালানো হয়েছে। এরপরও যদি অবৈধ কার্যক্রম বন্ধ করা না হয় তাহলে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।  একইসাথে জনস্বার্থে ভোক্তা অধিকারসহ অন্যান্য আইনেও নিয়মিত ভ্রাম্যমান আদালতের কার্যক্রম পরিচালনা করার আশ্বাস দেন তিনি। এসময় গুইমারা থানার এ,এস.আই রাজ্জাক সহ প্রশাসনের কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, এর আগে গত ২৫এপ্রিল গুইমারা বাইল্যাছড়ি এলাকায় স্থাপিত মোঃ কামাল উদ্দিনের মালিকানাধীন এলাকার মেসার্স কে.সি ব্রিকস্ ম্যানুফ্যাকচারিং এর ৫০হাজার টাকা এবং ২৬এপ্রিল গুইমারা উপজেলা সদরের অদুরে আমতলীপাড়া এলাকায় একই স্থানে পাশাপাশি স্থাপিত গুইমারা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সহ প্রভাবশীলাদের মালিকানাধীন ফোর ষ্টার ব্রীক ম্যানুফ্যাকচারিং এর ৩৫হাজার টাকা জরিমানা করে ভ্রাম্যমান আদালত।

প্রভাবশালীদের এসব অবৈধ ইটভাটায় শুধু ভ্রাম্যমান আদালতের অর্থদন্ড নয়, পাশাপাশি বৈধ উপায়ে পরিবেশ বান্ধব পদ্ধতিতে ইট তৈরীর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করা, অন্যথায় প্রশাসনের প্রতি এসব ইটভাটাগুলো বন্ধ করে দেওয়ার দাবী জানিয়েছেন এলাকাবাসী। অবৈধ এসব ইট ভাটায় প্রতিনিয়ত কয়লার পরিবর্তে জ্বালানি হিসেবে হাজার হাজার বনজ কাঠ পোড়ানোর মহোৎসব বন্ধ করা না হলে পরিবেশের মারাত্মক বিপর্যয় নেমে আসবে বলে দাবী এলাকাবাসীর।