গুইমারায় শ্রম দিবস উপলক্ষ্যে র‌্যালি ও আলোচনা: ন্যায্য শ্রমের মুল্য নিশ্চিত করার দাবী

স্টাফ রিপোর্টার: শ্রমিকের শ্রমের ন্যায্য মুল্য ও শ্রমজীবিদের অধিকার নিশ্চিত করার দাবী জানিয়ে খাগড়াছড়ি’র গুইমারায় পালিত হয়েছে মহান মে ও আর্ন্তজাতিক শ্র

সেনাবাহিনীর টহলে হামলাকারী সন্ত্রাসীদের ছাড় নয় – লে: কর্ণেল নওরোজ নিকোশিয়ার
খাগড়াছড়িতে মসজিদের ইমামদের নিয়ে কর্মশালা
লক্ষ্মীছড়ি কৃষি বিভাগের উদ্যোগে কৃষকদের মাল্টা চাষ বিষয়ক প্রশিক্ষণ

স্টাফ রিপোর্টার: শ্রমিকের শ্রমের ন্যায্য মুল্য ও শ্রমজীবিদের অধিকার নিশ্চিত করার দাবী জানিয়ে খাগড়াছড়ি’র গুইমারায় পালিত হয়েছে মহান মে ও আর্ন্তজাতিক শ্রম দিবস। ১মে মঙ্গলবার সকালে মহান মে দিবস উপলক্ষে এক বর্নাঢ্য র‌্যালি ও আলোচনা সভার আয়োজন করে গুইমারা উপজেলা প্রশাসন। গুইমারা উপজেলা পরিষদ চত্ত্বর থেকে শুরু হয়ে মে দিবসের র‌্যালীটি উপজেলার গুরুত্বপূর্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে একই স্থানে গিয়ে শেষ হয়।

পরে গুইমারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পঙ্কজ বড়ুয়ার সভাপতিত্বে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার অস্থায়ী কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে মে দিবসের আলোচলা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, গুইমারা উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ঝর্ণা ত্রিপুরা, গুইমারা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, সাধারণ সম্পাদক ও গুইমারা সদর ইউপি চেয়ারম্যান মেমং মারমা, গুইমারা থানার অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন, গুইমারা উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক সুশীল রঞ্জন পাল, গুইমারা মাদ্রাসার সুপার মোঃ জায়নুল আবদীন। এছাড়াও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী-জনপ্রতিনিধি, ও শ্রমজীবি মানুষ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

অপরদিকে, র‌্যালী আলোচনা সভা, মিলাদ মাহফিল সহ দিনব্যাপী নানা কর্মসুচীর মধ্যদিয়ে শ্রম দিবস পালন করে গুইমারা উপজেলা শ্রমিক লীগ। ১মে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদনের মধ্য দিয়ে মে দিবসের আনুষ্ঠানিকতা শুরু করে উপজেলা শ্রমিক লীগ। পরে সকাল ১০টায় উপজেলা শ্রমিক লীগের উদ্যোগে মে দিবসের বর্ণাঢ্য র‌্যালী বের করা হয়। গুইমারা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মোঃ জাহাঙ্গীর আলমের নেতৃত্বে র‌্যালীটি গুইমারা উপজেলার প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে দলীয় কার্যালয়ে সামনে এসে শেষ হয়। র‌্যালীতে গুইমারা উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর ইউপি চেয়ারম্যান মেমং মারমা ছাড়াও উপজেলা শ্রমিক লীগ সভাপতি সুভাষ দত্ত, সাধারণ সম্পাদক নুরুন্নবী চৌধুরী রুবেল, সাংগঠনিক সম্পাদক উত্তম মল্লিক, উপজেলা যুবলীগ সভাপতি বিপ্লব শীল, ছাত্রলীগ সভাপতি সাগর চৌধুরী ও বিভিন্ন শ্রমজীবি সংগঠনের নেতাকর্মী ও শ্রমজীবিরা অংশগ্রহণ করেন।

পরে উপজেলা শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ নুরুন্নবী চৌধুরী রুবেলের সঞ্চালনায় ও সভাপতি সুভাষ দত্তের সভাপতিত্বে শ্রম দিবসের আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গুইমারা উপজেরা আওয়ামীলীগের সভাপতি মোঃ জাহাঙ্গীর আলম। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, গুইমারা উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর ইউপি চেয়ারম্যান মেমং মারমা সহ উপজেলা আওয়ামীলীগ ও সকল সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। সভায় বক্তারা বছরে শুধু মাত্র ১দিন শ্রম দিবস পালনের মধ্যে সীমাবন্ধ না থেকে শ্রমজীবি তথা শ্রমিকদের ন্যায্য অধিকার আদায় ও শ্রমিকদের কল্যানে ভুমিকা রাখতে উপস্থিত নেতৃবৃন্দকে আহবান জানান শ্রমিক নেতারা।

১৮৮৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো শহরের হে মার্কেটের ম্যাসাকার শহীদদের আত্মত্যাগকে স্মরণ করে মে দিবস পালিত হয়। সেদিন দৈনিক আট ঘন্টার কাজের এবং শ্রমিকদের ন্যায্য বেতনের দাবিতে শ্রমিকরা হে মার্কেটে জমায়েত হলে পুলিশের নির্বিচারে গুলিতে অনেক শ্রমিক নিহত হওয়ার পর আর্ন্তজাতিক ভাবে শ্রমিকদের অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে সোচ্চার হয় পুরো বিশ্ব। তারই ধারাবাহিকতায় ১৮৮৯সালে ফরাসী বিপ্লবের শতবার্ষিকীতে প্যারিসে দ্বিতীয় আর্ন্তজাতিক শ্রমিক দিবসের প্রথম কংগ্রেস অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে ১৮৯০সাল থেকে শিকাগো প্রতিবাদের বার্ষিকী ১মে মহান মে ও আর্ন্তজাতিক শ্রম দিবস হিসেবে পালন করার প্রস্তাব করেন রেমন্ড লাভিনে।