ঘটনার দেড়মাস পর দায়ের করা মামলায় খাগড়াছড়িতে বিএনপির ১০৮ নেতাকর্মীর আগাম জামিন

 ঘটনার দেড়মাস পর দায়ের করা মামলায় খাগড়াছড়িতে বিএনপির ১০৮ নেতাকর্মীর আগাম জামিন

স্টাফ রিপোর্টার: খাগড়াছড়িতে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনার প্রায় দেড় মাস পর দায়েরকৃত আরো দুই মামলায় খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য ওয়াদুদ ভূইয়া ও সাধারণ সম্পাদক এম এন আবছারসহ ১০৮ নেতাকর্মীকে ৬ সপ্তাহের আগাম জামিন দিয়েছেন হাইকোর্টের অবকাশকালী বেঞ্চ।

১৩ সেপ্টেম্বর বুধবার সুপ্রিম হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি মাহমুদুল হক ও  বিচারপতি কে. এম. ইমরুল কায়েস’র সমন্বয়ে গঠিত অবকাশকালীন বেঞ্চ এ জামিন মঞ্জুর করেন বলে জানা গেছে।

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার এ. কে. এম. ফখরুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, আসামিদের ৬ সপ্তাহের মধ্যে নিম্ন আদালতে হাজির হয়ে ফ্রেশ বেল বন্ড জমা দিতে হবে।

একই ঘটনায় গত ৭ আগস্ট সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি মুস্তাফা জামান ইসলাম ও বিচারপতি মোঃ আমিনুল ইসলাম-এর সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ  আরো চার মামলায় জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ ৫৩১ জন নেতাকর্মীকে ৬ সপ্তাহের আগাম জামিন দেন। একই ঘটনায় প্রায় দেড় মাস পর গত ৩১ আগস্ট জেলা আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক নুরুল আজম বাদী হয়ে আরো একটি মামলা দায়ের করেন। জিআর নং ১২৮/২০২৩ ইং মামলায় জেলা বিএনপির সভাপতিসহ ১১২ জনের নাম উল্লেখ করে আরো অজ্ঞাত ৮০ জনকে আসামি করা হয়।

এছাড়াও একই ঘটনায় জনৈক দেলোয়ার হোসেন বাদী হয়ে গত ২৭ আগস্ট খাগড়াছড়ি আমলী আদালতে আরো একটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় খাগড়াছড়ি জেলা ছাত্রদলের দপ্তর সম্পাদক বাপ্পি দাশসহ ৯ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো ৬ জনকে আসামি করা হয়।

গত ১৮ জুলাই সকাল সাড়ে ১০টায় খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপির কার্যালয়ে হামলার ঘটনার জেরে আ.লীগ ও বিএনপি অফিসে পাল্টা-পাল্টি হামলাসহ দুইপক্ষের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ ঘটে। এ সময় পুলিশ টিয়ারসেল নিক্ষেপ করলে সাংবাদিক ও পুলিশসহ  ৫০জন আহত হয়।

এডভোকেট বেদারুল ইসলাম বলেন, এ ঘটনায় বিএনপির পক্ষ থেকে দায়েরকৃত মামলা পুলিশ গ্রহণ না করলেও প্রায় আড়াই হাজার বিএনপির নেতাকর্মীকে আসামি করে পৃথক ৬টি মামলা হয়েছে। একটা স্বাধীন দেশে দুই ধরনের আইন, এটা দুঃখজনক।

খাগড়াছড়ি জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আব্দুল মালেক মিন্টু বলেন, এটা আইনসিদ্ধ নয়। একই ঘটনা, একই সময়, একই আসামি ও ঘটনাস্থল একই ক্ষেত্রে একাধিক মামলা চলতে পারে না। সেক্ষেত্রে একই ঘটনায় একাধিক মামলা হলে প্রথম দায়েরকৃত মামলাটির বিচার চলবে। যা ডিএলআর-৬৩,পাতা নং ২০৪-এ উল্লেখ রয়েছে।

পাহাড়ের আলো

https://pahareralo.com

সর্বাধিক জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল। সর্বশেষ সংবাদ সবার আগে জানতে চোখ রাখুন পাহাড়ের আলোতে।

Related post