চট্টগ্রাম সংবাদশিরোনামস্লাইড নিউজ

ছাত্রলীগের সম্মেলন হলো না: দুর্নীতিবাজকে মনোনয়ন দেবেনা আওয়ামীলীগ- গণপূর্তমন্ত্রী

ফটিকছড়ি প্রতিনিধি: ২০ বছর পর গতকাল শুক্রবার ছিল ফটিকছড়ি উপজেলা ছাত্রলীগের সম্মেলনের নির্ধারিত দিন। পূর্ব নির্ধারিত সম্মেলনের সব অতিথি উপস্থিত হলো। বক্তব্য দিলো। কিন্তু কমিটি হয়নি। দুই বছরের অধিক সময় পার করা আহবায়ক কমিটির অনেকে সম্মেলনে যোগ দেয়নি। তবেকোন অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই শেষ হলো সম্মেলন। দীর্ঘদিন পদের জন্য গণসংযোগ ও নেতাদের ধারে ধারে তদবির করা কর্মীরা ফিরে গেলো নিরাশ হয়ে।

ফটিকছড়ি কলেজ মাঠে সম্মেলনে প্রধান অতিথি ছিলেন গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী এবং বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশারফ হোসেন এমপি। তিনি  বলেছেন, ২০১৯ সালের নির্বাচন হবে মুক্তিযুদ্ধের শক্তিতে বলীয়ান ও উন্নয়নশীল বাংলাদেশকে বিশ্বের বুকে তুলো ধরার নির্বাচন। এই নির্বাচন দেশ প্রেমের নির্বাচন। এই নির্বাচনের তিনশ আসনে সংসদ সদস্য মনোনয়ন দেবেন প্রধানমন্ত্রী ও দলনেত্রী শেখ হাসিনা। তিনি প্রত্যেকটি আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য ও সম্ভাব্য প্রার্থীদের বিভিন্ন গোয়েন্ধা সংস্থার মাধ্যমে খবর নিচ্ছেন। এবার বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ টিআর, কাবিখার টাকা মেরে খায়, কারা ডিও লেটার বিক্রেতাদের মনোনয়ন দেবেনা। তাই আগামী নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর বিজয় নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ ছাত্রলীগকে আন্তরিকতার সাথে কাজ করার আহবান জানিয়ে ও ছাত্রলীগকে হুঁশিয়ারী প্রদান করে মন্ত্রী বলেন, ‘কোন অছাত্র এবং বার বার ফেল করা ছাত্রদের ছাত্রলীগের কোন দায়িত্ব রাখা হবেনা। ইতিহাস ঐতিহ্যে ভরপুৃর এ সংগঠনে মেধাবি ছাত্রদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে।

মুক্তিযোদ্ধা ও বর্ষীয়ান এই নেতা বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ্যে করে বলেছেন, মসজিদে আগুন দিয়ে, মানুষ পুড়িয়ে খুনি হওয়া যায়, প্রধানমন্ত্রী হওয়া যায়না। প্রধান মন্ত্রী হতে হলে জনগণের কাতারে এসে কাজ করতে হবে। বিগত  ৫ জানুয়ারির মত পেট্রোল বোমা মেরে মানুষ হত্যা করে বিএনপি নেত্রী আবার ক্ষমতায় আসতে চান, সে সুযোগ এদেশের জনগন আর আপনাদের দেবে না। যারা এতিমের টাকা মেরে খায় তাদের বিচার অবশ্যই এদেশের মাটিতে হবে।

ফটিকছড়ি উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক সাহেদ উল আলম সাহেদের সভাপতিত্বে ফটিকছড়ি কলেজ মাঠে আয়োজিত সম্মেলনে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক এমপি নুরুল আলম চৌধুরী, বিশেষ অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগ নেতা আলহাজ এটিএম পেয়ারুল ইসলাম, বিশেষ বক্তা ছিলেন উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক আবু তৈয়ব, আওয়ামী লীগ নেতা ব্যারিষ্টার তানজিব উল আলম, জেলা পরিষদ সদস্য আখতার উদ্দিন মাহমুদ পারভেজ, ফটিকছড়ির মেয়র আলহাজ মো.ইসমাইল হোসেন, ইঞ্জিনিয়ার মো.হারুন, অধ্যাপক শওকত হোসেন, উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারন সম্পাদক নাজিম উদ্দিন মুহুরী, জেলা আওয়ামী লীগ নেতা খাদিজাতুল আনোয়ার সনি, সৈয়দ মো. বাকের, মো.রুস্তম আলী, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সাকিবুল হাসান সুইম, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক রাসেল হোসেন। সম্মেলনের উদ্বোধন করেন চট্টগ্রাম উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি বখতেয়ার সাঈদ ইরান। অনুষ্টানটি সঞ্চালনা করেন, ছাত্রলীগ নেতা মাইনুল করিম সাকী ও মো. গিয়াস উদ্দিন।