দুদকের মামলায় ব্যবসায়ী পিতা-পুত্র কারাগারে

ফটিকছড়ি প্রতিনিধি:  ৪০ কোটি টাকা আত্মসাতের দায়ে দুদকের মামলায় ব্যবসায়ী পিতা পুত্রকে  কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত। সোমবার দিবাগত রাতে গ্রেফতারের পর আজ মঙ্গ

কাপ্তাইয়ে ৩ নারী মাদক পাচারকারী আটক, মদের জমজমাট ব্যবসা
মইনীয়া যুব ফোরামের ৮ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ও যুব মহাসমাবেশ
রাঙ্গুনিয়ায় তুচ্ছ ঘটনায় বৃদ্ধ খুন

ফটিকছড়ি প্রতিনিধি:  ৪০ কোটি টাকা আত্মসাতের দায়ে দুদকের মামলায় ব্যবসায়ী পিতা পুত্রকে  কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত। সোমবার দিবাগত রাতে গ্রেফতারের পর আজ মঙ্গলবার দুপুরে তাদেরকে কারাগারে পাঠানো হয়। গ্রেফতার দুই ব্যবসায়ী হলেন  নগরীর সদরঘাট এলাকার আইমান এন্টারপ্রাইজের স্বত্তাধিকারী   হোটেল  হিরোসিটির মালিক এম এএস আলম ওরফে মো. শাহ আলম এবং তার ছেলে ব্যবস্থাপনা পরিচালক এস এম পারভেজ আলম হিরু।সোমবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে নগরীর কোতোয়ালী থানায় দুদকের সহকারী পরিচালক এইচ এম আখতারুজ্জামান বাদি হয়ে তাদের বিরুদ্ধে মামলাটি করেন। সুত্র জজানায়, চট্টগ্রামে প্রিমিয়ার ব্যাংক লিমিটেডের খাতুনগঞ্জ শাখা থেকে ৩৯ কোটি ৬৮ লাখ টাকা ঋণ নিয়ে আত্মসাত করেন। দুদক কর্মকর্তা লুৎফুল কবির চন্দন বলেন, ঋণের টাকা আত্মসাৎ এবং জালিয়াতির মাধ্যমে ঋণ গ্রহণের অভিযোগে করা মামলায় শাহ আলম ও পারভেজ আলমকে আসামি করা হয়।

নগরীর কোতোয়ালী থানায় এবিষয়ে মামলা হওয়ার পর পরই নগরীর খুলশীর জাকির হোসেন সড়ক থেকে তাদের আটক করা হয় বলে দুদক সমন্বিত জেলা কার্যালয় চট্টগ্রাম-১ এর উপ-পরিচালক লুৎফুল কবির চন্দন জানিয়েছেন।লুৎফুল কবির  বলেন, শাহ আলম তার তিন ভাইয়ের স্বাক্ষর জাল করে পৈত্রিক ১১২ দশমিক ৯৭ শতাংশ জমি বন্ধক রেখে বেসরকারি প্রিমিয়ার ব্যাংক লিমিটেডের খাতুনগঞ্জ শাখা থেকে ৩৯ কোটি ৬৮ লাখ ১৪ হাজার টাকা ঋণ নেন। জমি বন্ধক দিয়ে ঋণ নেয়ার বিষয়টি তার ভাইরা কেউই জানতেন না। ২০০৪ সাল থেকে বিভিন্ন সময়ে এই ঋণ নেওয়ার পর তারা তা শোধ করেননি।
এ ঘটনার বিষয়ে অভিযোগ পেয়ে তা অনুসন্ধানের অনুমতি চাইলে দুর্নীতি দমন কমিশনের প্রধান কার্যালয় থেকে এতে অনুমোদন দেওয়া হয়।

এরপর অনুসন্ধানে অভিযোগের সত্যতা পায় দুদক চট্টগ্রাম জেলা কার্যালয়ের কর্মকর্তারা। পরে প্রধান কার্যালয় থেকে মামলার অনুমতি মেলে। এর পরই তাদের দুজনকে গ্রেফতার করা হয়। উল্লেখ্য, ফটিকছড়ির সাবেক সংসদ সদস্য রফিকুল আনোয়ারের একমাত্র কন্যার শাশুর হোটেল হিরোসিটির মালিক এম এএস আলম ওরফে মো. শাহ আলম এবং জামাতা তার ছেলে ব্যবস্থাপনা পরিচালক এস এম পারভেজ আলম হিরু। এখবর সারাদিন ফটিকছড়ির মুল আলোচ্য বিষয় ছিল।