দুর্বৃত্তের গুলিতে নানিয়ারচর উপজেলা চেয়ারম্যান শক্তিমান চাকমা নিহত

রাঙামাটি প্রতিনিধি: রাঙামাটির নানিয়ারচর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি এমএন লারমা গ্রুপ কেন্দ্রীয় কমিটির (জেএসএস সংস্কার

নানিয়ারচর উপজেলায় অস্ত্র ও গুলি উদ্ধার, ক্রেতা-বিক্রেতা আটক
রাঙ্গামাটির নানিয়ারচরে প্রতিপক্ষের গুলিতে ইউপিডিএফ’র শীর্ষ নেতা নিহত, আহত ১
নানিয়ারচরে সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত ২

রাঙামাটি প্রতিনিধি: রাঙামাটির নানিয়ারচর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি এমএন লারমা গ্রুপ কেন্দ্রীয় কমিটির (জেএসএস সংস্কার)  সহ-সভাপতি এডভোকেট শক্তিমান চাকমাকে গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। ৩মে বৃহস্পতিবার সকাল ১১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এসময় চেয়ারম্যানের সাথে থাকা জেএসএস সংস্কারের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক রূপম চাকমাও গুলিবিদ্ধ হয়। তবে তিনি অক্ষত আছেন।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, চেয়ারম্যান শক্তিমান প্রতিদিনের ন্যায় সকালে উপজেলা পরিষদে তার অফিসে আসার জন্য রওনা করে। অফিস গেইটে ঢোকার সাথে সাথে দুর্বত্তরা তাকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়লে তিনি গুরুতর আহত হয়। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। জেএসএস সংস্কার এ ঘটনার জন্য ইউপিডিএফকে দায়ী করেছে। ঘটনার পর পুরো এলাকায় চরম উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। সহিংসতা এড়াতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা পুরো এলাকা ঘিরে রেখেছেন।

পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি এমএন লারমা গ্রুফ’র (জেএসএস সংস্কার) কেন্দ্রীয় কমিটির প্রচার সম্পাদক সুধাকর ত্রিপুরা এ ঘটনার জন্য ইউপিডিএফকে দায়ী করে বলেন, ইউপিডিএফ’র সশস্ত্র গ্রুপ’র নেতা অর্পন চাকমার নেতৃত্বে এ ঘটনা ঘটে। রাঙামাটি পুলিশ সুপার আলমগীর কবির জানান, আমি শুনেছি নানিয়ারচরে এ ধরণের প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে।

উল্লেখ্য, পার্বত্য চট্টগ্রামের আঞ্চলিক দল জনসংহতি সমিতি থেকে বেরিয়ে গিয়ে বিদ্রোহীরা জনসংহতি সমিতি (এমএন লারমা) নামে নতুন দল গঠন করেছিলেন। এর অন্যতম প্রভাবশালী নেতা ছিলেন শক্তিমান চাকমা।