পিতা-মাতাকে সন্তানের শাসক না হয়ে বন্ধুর ভূমিকা পালন করতে হবে

ফটিকছড়ি প্রতিনিধি: মাইজভাণ্ডার দরবার শরীফের সাজ্জাদানশীন ও আন্জুমানে রহমানিয়া মইনীয়া মাইজভাণ্ডারীয়ার কেন্দ্রীয় সভাপতি, রাহবারে শরীয়ত ও ত্বরীকত হযরত শা

ম্যাক্স হাসপাতাল বন্ধের দাবীতে ফটিকছড়িতে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ
ইসলামের নামে জঙ্গীবাদী সন্ত্রাসীদের কোন ধর্ম নেই -মাওলানা নুরী
রাঙ্গুনিয়ায় দিনব্যাপী গ্রামীণ কৃষি প্রযুক্তি মেলা অনুষ্টিত

ফটিকছড়ি প্রতিনিধি: মাইজভাণ্ডার দরবার শরীফের সাজ্জাদানশীন ও আন্জুমানে রহমানিয়া মইনীয়া মাইজভাণ্ডারীয়ার কেন্দ্রীয় সভাপতি, রাহবারে শরীয়ত ও ত্বরীকত হযরত শাহ্সূফী মাওলানা সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (মা.জি.আ.) বলেছেন, মাদকের অবাধ বিস্তারের ফলে যুব সমাজ ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে। মাদকের সহজলভ্যতার কারণে শিশু কিশোরদের বড় অংশই আজ বিপদগামী।

এ জন্য প্রশাসনের চরম ব্যর্থতা রয়েছে। তাছাড়া সন্তানের বিপদগামীতায় আমরা অভিভাবকরাও কমদায়ী নই; কারণ মাতা-পিতা সন্তানের ঠিক মত খোঁজখবর রাখলে ও সন্তানকে øেহ-ভালোবাসা দিয়ে সঠিক লক্ষ্যে পৌঁছানোর ভবিষ্যত কর্মপন্থা নির্ধারণ করতে পারলে, সন্তান কখনো অন্যায় পথে পা বাড়াতে পারে না। অনেককে দেখা যায়, সন্তানকে অতিমাত্রায় শাসন ও অতিমাত্রায় আদর-øেহ করতে। এর কোনোটাই সন্তানের জন্য মঙ্গল নয়। কারণ অতিøেহ ও অতি শাসনের ফলে ছেলে মেয়েরা অনেক সময় বকে যায়। তাই, পিতা-মাতাকে সন্তানের শাসক না হয়ে বন্ধুর ভূমিকা পালন করতে হবে। তিনি বলেন, আমাদের সন্তানরা যখন হীনমনতায় বা একাকীত্ব ও হতাসাগ্রস্ত হয়ে পড়ে; তখনই সে বিপদগামীতার পথে পা বাড়ায়। তাই অভিভাবকরা যতই কর্মব্যস্ত হয়ে পড়–ক না কেন; সন্তানের একাকীত্ব দূর করতে তাদেরকে সময় দিতে হবে। তাদেরকে ভালোবাসার বন্ধনে আগলে রাখতে হবে। সন্তানদের ছোটখাটো ভুলগুলো শুধরে দিয়ে মার্জনার চোখে দেখতে হবে। তাহলে আর তারা অন্যায় পথে পা বাড়াবে না। তিনি আরও বলেন, বিভিন্ন কারণে সমাজে সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, নেশাগ্রস্ততা, ইভটিজিংসহ বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ড বেড়েই চলেছে। তিনি এ থেকে পরিত্রাণে সামাজিক সচেতনতা গড়ে তোলার পাশাপাশি আওলিয়ায়ে কেরামের মহান আদর্শে নিজদেরকে পরিচালিত করার আহ্বান জানান।

আন্জুমানে রহমানিয়া মইনীয়া মাইজভাণ্ডারীয়ার খিলগাঁও কমিটির উদ্যোগে ৬ মার্চ ২০১৮ইং মঙ্গলবার রাতে ঢাকার শাহজাহানপুর খিলগাঁও বাগিচা জামে মসজিদ ময়দানে বিশাল ইসলামী সম্মেলনে হযরত শাহ্সূফী সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (মা.জি.আ.) প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। মাহফিলে সভাপতিত্ব করেন, ইসমাত জামিল আকন্দ লাভলু। মাহফিলে বিশেষ অতিথি ছিলেন, খালিদ মাহমুদ ভূঁইয়া।

আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন, পীরজাদা হযরত মাওলানা মুফতী বাকী বিল্লাহ আল্-আযহারী, মাওলানা মাসুদ হোসাইন আল্-কাদেরী, মাওলানা রুহুল আমিন ভূঁইয়া, খলিফা সাইফুল ইসলাম কন্ট্রাক্টর, খলিফা শাহজাহান, মো: শাহিন প্রমুখ। পরে সালাত সালাম মিলাদ কিয়াম শেষে বিশ্ববাসীর শান্তি ও কল্যাণ কামনায় বিশেষ মুনাজাত করেন হযরত শাহ্সূফী সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (মা.জি.আ.)।