চট্টগ্রাম সংবাদফটিকছড়িশিরোনামস্লাইড নিউজ

বার্ষিক ওরশ মাহফিল: ‘তৃণমূলে থাকা খলিফাদেরকে মাইজভাণ্ডারী দর্শন পঠন-পাঠনের ওপর জোর দিতে হবে’

পাহাড়ের আলো: গাউছুল আ’যম শাহ্সূফী মাওলানা সৈয়দ গোলামুর রহমান বাবাভাণ্ডারীর (ক.) পুত্র ও তাঁর জানাজা শরীফের ইমাম শায়খুল উলামা হযরত শাহ্সূফী আল্লামা সৈয়দ আবুল বশর মাইজভাণ্ডারী (ক.)’র বার্ষিক ওরশ শরীফ ও খলিফা সম্মেলন আন্জুমানে রহমানিয়া মইনীয়া মাইজভাণ্ডারীয়ার উদ্যোগে ১৬ ডিসেম্বর সোমবার মাইজভাণ্ডার দরবার শরীফে অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন আওলাদে রাসূল (দ.), রাহবারে শরীয়ত ও ত্বরীকত হযরত শাহ্সূফী আল্লামা সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী ওয়াল হোসাইনী আল্-মাইজভাণ্ডারী (মা.জি.আ.)।

তিনি বলেছেন, মাইজভাণ্ডারী ত্বরীকা ও দর্শনে বিশ্বশান্তি, বিশ্বের সকল ধর্ম সম্প্রদায়ের মানুষের ঐক্য ও সম্প্রীতির সঙ্গে বসবাসের দিক নির্দেশনা রয়েছে। আল্লাহর সেরা সৃষ্টি মানুষের জয়গান গেয়েছেন মাইজভাণ্ডারী মহাত্মারা। দেশে দেশে ঐক্য, মানুষে মানুষে সম্প্রীতির পথ দেখিয়ে গেছেন তাঁরা। ধর্মের কারণে কেউ কারো ওপর প্রভুত্ব খাটাবে, ধর্মীয় অহংবোধে কেউ কাউকে ছোট করবে এটি মাইজভাণ্ডারী মহাত্মাদের শিক্ষা নয়। ভোগ, অভিলাষ, ক্ষমতা লিপ্সা ও নিজেকে শ্রেষ্ঠত্বের আসনে নিয়ে যাওয়ার জন্য সাম্প্রদায়িকতা উস্কে দেয়ার মতো ঘটনার কারণে বিশ্বে আজ সংঘাত-সহিংসতা ছড়িয়ে পড়েছে। ধর্মের কারণে বিভাজন নয় বরং নিজ নিজ ধর্ম পালনের মাধ্যমে ধর্মীয় বৃহত্তর সম্প্রীতিবোধ জাগ্রত করার মাইজভাণ্ডারী মহাত্মাদের এই দর্শন ও শিক্ষা সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দিতে হবে। সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ বলেন, বক্তৃতা ও তাত্ত্বিক লেখনীর মাধ্যমে মাইজভাণ্ডারী গণবাদী দর্শনকে দেশে-বর্হিবিশ্বে পৌঁছে দেয়ার কাজটি নিষ্ঠার সঙ্গে করেছিলেন শাহ্সূফী আল্লামা আবুল বশর মাইজভাণ্ডারী (ক.)। তিনি তৃণমূলে ও বিশ্বের নানা দেশে ছড়িয়ে থাকা মাইজভাণ্ডারী ত্বরীকতের দীক্ষাপ্রাপ্ত খলিফাদেরকে জ্ঞানের শক্তিতে উজ্জীবিত হয়ে পঠন-পাঠন জোরদার করে মাইজভাণ্ডারী দর্শনের দাওয়াত মানুষের ঘরে ঘরে পৌঁছে দেওয়ার আহ্বান জানান। এজন্য প্রাতিষ্ঠানিক সাংগঠনিক ও প্রকাশনা কার্যক্রম জোরদারের পরামর্শ দেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, হুজুর গাউছুল ওয়ারা শাহ্সূফী মাওলানা সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ক.) এক্ষেত্রে আমাদের অফুরান প্রেরণার উৎস। সম্মেলনে বিশেষ অতিথি ছিলেন শাহ্জাদা সৈয়দ মাশুক-এ-মইনুদ্দীন আল্-হাসানী, শাহ্জাদা সৈয়দ হাসনাইন-এ-মইনুদ্দীন আল্-হাসানী। আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন হযরত সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ মাইজভাণ্ডারী ট্রাস্টের মহাসচিব অ্যাডভোকেট কাজী মহসীন চৌধুরী, আন্জুমান কেন্দ্রীয় সহসভাপতি খলিফা কবীর চৌধুরী, সাধারন সম্পাদক খলিফা আলমগীর খান মাইজভাণ্ডারী, হযরত মাওলানা রুহুল আমীন ভুঁইয়া চাঁদপুরী, খলিফা মনির হোসেন, হযরত মাওলানা বাকের আনসারী, হযরত মাওলানা নঈম উদ্দীন, খলিফা আব্দুল মান্নান, হযরত মাওলানা শেখ সাদী আব্দুল্লাহ সাদকপুরী, হযরত মাওলানা আব্দুস ছাত্তার ছিদ্দিকী, হযরত মাওলানা ইসমাইল হোসেন সিরাজী প্রমুখ। সালাত সালাম শেষে দেশ-বিশ্ববাসীর কল্যাণ, মুসলিম উম্মাহর ঐক্য-সংহতি ও বিশ্বের নিপীড়িত মানবতার কল্যাণ কামনায় মুনাজাত করেন আওলাদে রাসূল (দ.) শাহ্সূফী মাওলানা সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (মা.জি.আ.)। হাজারো মাইজভাণ্ডারী ভক্ত-খলীফা-আশেকান ওরশ মাহফিল ও খলীফা সম্মেলনে অংশ নেন। অনেকেই নিজেদের মতামত অভিমত ও ভবিষ্যৎ রূপরেখা তুলে ধরে বক্তব্য দেন।