মহালছড়ি মিলনপুর বন বিহারে পূণ্যানুষ্ঠান

মহালছড়ি প্রতিনিধি: খাগড়াছড়ির মহালছড়ি উপজেলার মিলনপুর বন বিহারে সাধনানন্দ মহাস্থবির এর পরিনির্বান ও প্রজ্ঞাহিত ভান্তের স্থবির উপলক্ষে এলাকার ধর্মপ্রাণ

মহালছড়িতে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের ৪৩তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী
মানিকছড়ি গিরি মৈত্রী সরকারি ডিগ্রী কলেজের দুর্নীতি অনুসন্ধানে নেমেছে দুদক
খাগড়াছড়িতে রেড় ক্রিসেন্ট সোসাইটির সমন্বয় সভা

মহালছড়ি প্রতিনিধি: খাগড়াছড়ির মহালছড়ি উপজেলার মিলনপুর বন বিহারে সাধনানন্দ মহাস্থবির এর পরিনির্বান ও প্রজ্ঞাহিত ভান্তের স্থবির উপলক্ষে এলাকার ধর্মপ্রাণ বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের আয়োজনে ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে  এক পূণ্যানুষ্ঠান মিলনপুর বনবিহার প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয়।

৩০ জানুয়ারী মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টায় অনুষ্ঠিত পূণ্যানুষ্ঠানে ধর্মীয় সংগীত পরিবেশন ও মঙ্গলপ্রদীপ প্রজ্জ্বলন করে প্রধান ধর্মদেশক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, রাঙ্গামাটির জেলার অজলচুগ বন বিহারের বিহারাধ্যক্ষ শ্রীমৎ সত্যমতি ভিক্ষু। প্রধান সংঘনায়ক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, মিলনপুর বন বিহারের বিহারাধ্যক্ষ  শ্রীমৎ শ্রদ্ধাতিষ্য মহাস্থবির। এ পূণ্যানুষ্ঠানে পরিনির্বাণ প্রাপ্ত সাধনানন্দ মহাস্থবির (বনভান্তে)র স্মরণে বুদ্ধমূর্তি দান, অষ্টপরিস্কার দান, সংঘদান, আকাশবাতি দান, হাজারবাতি দানসহ নানাবিধ দানানুষ্ঠান করা হয় এবং সকল জীবের হিতার্থে সমবেত প্রার্থনা করা হয়।

ধর্মীয় দেশনাকালে প্রধান ধর্মদেশক শ্রীমৎ সত্যমতি ভিক্ষু পরিনির্বাণ প্রাপ্ত সাধনানন্দ মহাস্থবির (বনভান্তে)কে শ্রদ্ধাচিত্তে স্মরন করে বলেন, লোহাকে যেমন মরিচায় ধ্বংস করে তেমনি হিংসা, দ্বেষ, মোহ মানুষকে ধ্বংস করে। অহিংসা পরম ধর্ম- বুদ্ধের এ চিরন্তন বাণীকে অনুসরন করে সকলকেই মৈত্রীভাব পোষণ করার আহবান জানান। অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে ধর্মীয় দেশনা ও শ্রীমৎ প্রজ্ঞাহিত ভিক্ষুকে ধর্মীয় রীতিনীতি অনুযায়ী স্থবির বরণ করা হয়।

উল্লেখ্য, ২০১১ সালের ৩০ জানুয়ারী এই দিনে রাঙ্গামাটি রাজ বন বিহারের বিহারাধ্যক্ষ শ্রীমৎ সাধনানন্দ মহাস্থবির (বনভান্তে) পরলোকগত হন।