খাগড়াছড়িখাগড়াছড়ি সংবাদপাহাড়ের সংবাদমানিকছড়িশিরোনামস্লাইড নিউজ

মানিকছড়িতে ‘কমিউনিটি পুলিশিং ‘ওপেন হাউজ ডে’ সভা

মানিকছড়ি প্রতিনিধি: খাগড়াছড়ি জেলার মানিকছড়িতে কমিউনিটি পুলিশিং ও ওপেন হাউজ ডে উপলক্ষে আয়োজিত সভায় বক্তারা বলেন, আসন্ন দুর্গোৎসবকে ঘিরে এবং এ অঞ্চলের নিরব চাঁদাবাজি বন্ধ করতে হলে সবাইকে একযোগে ওই সন্ত্রাস ও দুর্বিত্তদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার মধ্য দিয়ে সমাজে শান্তি নিশ্চিত করতে হবে। আসন্ন দুর্গা পূজায় যাতে কেউ বিঘ্ন সৃষ্টি করতে না পারে সেজন্য সবাইকে সজাগ থেকে সকল অপকর্মের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হয়ে তা প্রতিরোধ এবং পুলিশিং কাজে সহযোগিতা করলে যেকোন অপরাধ,অপকর্ম,দূবিত্তায়ণ বন্ধ করতে পুলিশ বদ্ধপরিকর। মানুষের যান ও মালের নিরাপত্তা নিশ্চিত করাই পুলিশের ধর্ম ও কর্ম।

২৭ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে ৪টায় মানিকছড়ি থানা পুলিশ কর্তৃক আয়োজিত কমিউনিটি পুলিশিং সমাবেশ ও ওপেন হাউজ ডে উপলক্ষে উপজেলা টাউন হলে এক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ রশীদ এর সভাপতিত্বে অনুষ্টিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন খাগড়াছড়ি পুলিশ সুপার মো. আহমার উজ্জামান এর পক্ষে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এম.এম সালাউদ্দিন। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান ম্রাগ্য মারমা, সাবজোন কমান্ডার সামিউল মাসুদ, এএসপি সায়িদুল ইসলাম, এএসপি (সার্কেল) সৈয়দ মো. ফরহাদ, ও.সি (তদন্ত) মোহাম্মদ আলী, ভাইস চেয়ারম্যান রাহেলা আক্তার, পুলিশিং কমিটি সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান এম.এ.রাজ্জাক,সদ;স্য সচিব সজল বরণ সেন, আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক মো. মাঈন উদ্দিন, ইউপি চেয়ারম্যান মো.শহীদুল ইসলাম মোহন, মো.শফিকুর রহমান ফারুক, ক্যয়জরী মহাজন, প্যানেল চেয়ারম্যান মো. বাহার মিয়া, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি এম.এ. করিম, প্রধান শিক্ষক দীলিপ কুমার দেব, মো. আতিউল ইসলাম, মো. বশির আহম্মদ, বিপ্লব চক্রবর্তী, হেডম্যান ,কার্বারী , সাংবাদিক ও কমিউনিটি পুলিশিং সদস্যবৃন্দ প্রমূখ।

সভায় বক্তারা বলেন, এ অঞ্চলের অশান্তি হলো তৃণমূলে নিরব চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাস,মাদক, ইয়াবা সেবন এবং বাল্য বিয়ে। তৃণমূলে এসব অপকর্মে সাধারণ মানুষ অতিষ্ঠ হলেও পুলিশ সবসময় অপরাধীদের বিরুদ্ধে সোচ্চার। সঠিক তথ্য না পাওয়ায় অপরাধীদের আইনের আওতায় আনতে পুলিশকে বেগ পেতে হয়। এ ক্ষেত্রে প্রয়োজন দ্রুত পুলিশকে তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করা। এছাড়া আসন্ন দুর্গাপূজাকে ঘিরে কেউ যাতে গুজব ছড়াতে না পারে,সেদিকে সবাইকে সচেতন থাকতে হবে এবং সকল অপকর্মের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হয়ে তা প্রতিরোধে, পুলিশিং কাজে সহযোগিতা করলে যেকোন অপরাধ,অপকর্ম,দূবিত্তায়ণ বন্ধ করতে পুলিশ বদ্ধপরিকর। মানুষের যান ও মালের নিরাপত্তা নিশ্চিত করাই পুলিশের ধর্ম ও কর্ম। পরে সভাপতি তাঁর সমাপনী ভাষণে বলেন, এ অঞ্চলের নিরীহ মানুষ যাতে নিরাপদে বসবাস করতে পারে পুলিশ সেটি ভেবেই কাজ করছে। এখন প্রয়োজন সকল অপর্কমের বিরুদ্ধে তথ্য আদান-প্রদান। যাতে দ্রুত অপরাধীদের আইনের আওতায় আসা যায়। এখানকার সচেতন ও সুশীলরা সবসময় পুলিশকে সহযোগিতা করায় আইন-শৃংখলা স্বাভাবিক রয়েছে। এ জন্য সকলের প্রতি পুলিশ কৃতজ্ঞ।