• June 19, 2024

রাত পোহালেই মানিকছড়ি আ.লীগের কাউন্সিল

আবদুল মান্নান : বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ মানিকছড়ি শাখা ৩ যুগ পার করছে আর এ দীর্ঘ সময়ে ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিল সম্পন্ন হয়েছে মাত্র পাঁচবার। এখন চলছে ৬ষ্ট কাউন্সিলের শেষ প্রস্তুতি। সভাপতি ও সম্পাদকসহ বর্তমান কমিটি অপরিবর্তিত রাখার দাবীতে হাজার,হাজার ব্যানার,ফেস্টুনে রাঙ্গিয়ে তোলা হয়েছে উপজেলা সদরকে। কাউন্সিলকে ঘিরে এত সাজ-সজ্জা ও উৎসবমূখর পরিবেশ এ জনপদে কখনও হয়নি। ৩ সেপ্টেম্বর আয়োজিত অনুষ্টানে প্রধান অতিথি থাকবেন পার্বত্য শরণার্থী পূর্ণবাসন বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের চেয়ারম্যান ও খাগড়াছড়ির সাংসদ কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা। এদিকে নতুন কমিটিকে তারুণ্য নির্ভর ও শক্তিশালী করার প্রত্যয়ে কাজ করছে সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, পার্বত্য খাগড়াছড়ি মানিকছড়িতে ১৯৮৩সালে তৎকালীণ আ.লীগ নেতা মরহুম খান মুকবুল আহম্মদ(সভাপতি) এবং এস.এম. গিয়াস উদ্দীন(সাধারণ সম্পাদক) এর হাত ধরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শানুসারীরা রাজনীতি শুরু করেন। ১৯৮৩-২০১৯ খ্রি, এ দীর্ঘ সময়ে কাউন্সিল সম্পন্ন হয়েছে ৫বার। ১৯৮৩-১৯৯৬ পর্যন্ত দুই মেয়াদে সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন তৎকালীণ আ.লীগ নেতা মরহুম খান মুকবুল আহম্মদ। সাধারণ সম্পাদক ছিলেন এস.এম. গিয়াস উদ্দীন ও মো.সফিউল আলম চৌধুরী। ১৯৯৬ সালে দলের ৩য় কাউন্সিলে সভাপতি পদে আসেন সাবেক উপজাতী নেতা ও শিক্ষক এবং সর্বজন শ্রদ্ধেয় ব্যক্তিত্ব ম্রাগ্য মারমা। সাধারণ সম্পাদক পদে আসেন তরুণ ছাত্রনেতা ও শিক্ষক এম.এ. জব্বার।

১৯৯৬-২০১২ সালের ২৮ এপ্রিল পর্যন্ত তাঁরা দুই মেয়াদে দল পরিচালনা করেন। এর পর ২৯ এপ্রিল ২০১২ তারিখে অনুষ্টিত হয় দলের ৫ম কাউন্সিল। ওই কাউন্সিলে সভাপতি পদে আসেন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ নেতা মো. জয়নাল আবেদীন। আর সাধারণ সম্পাদক পদে আসেন তৎকালীন স্বৈরশাসকের বিরুদ্ধে (১৯৯০সালে) রাজপথ কাপানো এবং ২০০৩ সালে বিএনপি সরকারের আমলে উপজেলায় ১৪৪ ধারা ভেঙ্গে রাজপথে নেতৃত্বদানকারী তরুণ ছাত্রনেতা ও নির্বাচিত ছাত্রলীগ সভাপতি মো. মাঈন উদ্দীন। শীর্ষ এ দুই পদে, দুই কান্ডারী যুবলীগ ও ছাত্রলীগ থেকে সরাসরি মূলদলের অভিভাবক হয়ে (২০১২-২০১৯)দীর্ঘ প্রায় ৭ বছর দল পরিচালনা করে আসছেন। তৃণমূল আওয়ামীলীগ, ছাত্রলীগ,যুবলীগ এবং অঙ্গসংগঠনের সকল নেতা-কর্মীদের দাবী এ সময়ে((২০১২-২০১৯) তৃণমূলে দল সবচেয়ে বেশি শক্তিশালী হয়েছে।

জনপদে সরকারের ব্যাপক উন্নয়নের পাশাপাশি দলের নেতা-কর্মীরা পেয়েছে মূল্যায়ণ। দলের কোথাও পাওয়া না পাওয়ার দীর্ঘশ্বাস নেই,অভিমান নেই,অবমূল্যায়ণের অভিযোগ নেই। সবাইকে তুষ্ট রেখে দল পরিচালনায় অবদান রাখায় আসন্ন কাউন্সিলে বর্তমান কমিটি বহাল রাখার দাবীতে ইতোমধ্যে দলীয় অফিস চত্বর, দোকান-পাট, রাস্তা-ঘাট ও সমাবেশস্থল সাজানো হয়েছে হাজার, হাজার ব্যানার-ফেস্টুনে। প্রায় সকল ব্যানারেই সভাপতি মো. জয়নাল আবেদীন ও সাধারণ সম্পাদক মো, মাঈন উদ্দীনের সফলনতার গুন-কীর্তন তুলে ধরা হয়েছে।

তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের এমন ভালোবাসায় জনপদে প্রশংসিত হয়েছেন বর্তমান কমিটি। ফলে ৩ সেপ্টেম্বরের সম্মেলনে দলের নতুন গঠনতন্ত্রের ৭১ সদস্য কমিটিতে সভাপতি ও সম্পাদক অপরিবর্তিত রেখে যুবলীগ ও ছাত্রলীগ থেকে অভিজ্ঞদের মূলদলে অর্ন্তভুক্ত করাসহ আসন্ন কাউন্সিলে আরো শক্তিশালী কমিটি উপহার দিতে নিরলসভাবে কাজ করছেন সভাপতি মো. জয়নাল আবেদীন,সাধারণ সম্পাদক মো. মাঈন উদ্দীন ও সম্মেলন প্রস্তুতির কমিটির আহবায়ক মো.শফিকুর রহমান ফারুক।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে সভাপতি মো. জয়নাল আবেদীন ও সাধারণ সম্পাদক মো. মাঈন উদ্দীন এক বাক্যে বলেন, জীবনে শুরু থেকেই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে আদর্শিত হয়ে‘বঙ্গবন্ধু’র ক্ষুধা ও দরিদ্র মুক্ত সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠায় নিরলসভাবে দলের অর্পিত দায়িত্ব পালন করে আসছি। আবারও দায়িত্ব পেলে অসাম্প্রদায়িক চেতনার বাংলাদেশ গঠনে নিজেকে আরো উৎসর্গ করবো।

সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহবায়ক মো.শফিকুর রহমান ফারুক ও সদস্য সচিব মো. মাঈন উদ্দীন কাউন্সিলের সর্বশেষ প্রস্তুতি সর্ম্পকে বলেন, আসন্ন কাউন্সিলকে ঘিরে ইতোমধ্যে এ জনপদে ব্যাপক সাড়া পড়েছে। অত্যান্ত উৎসবমূখর পরিবেশে সম্মেলন অনুষ্টিত হবে এবং এতে তারুণ্যনির্ভর ও শক্তিশালী কমিটি আগামী দিনের দায়িত্ব নেবে।

পাহাড়ের আলো

https://pahareralo.com

সর্বাধিক জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল। সর্বশেষ সংবাদ সবার আগে জানতে চোখ রাখুন পাহাড়ের আলোতে।

Related post