রামগড়ে দূর্গাপুজামন্ডপে দর্শনার্থীদের পদধূলায় মূখরিত

রতন বৈষ্ণব ত্রিপুরা, রামগড: করোনাভাইরাস প্রার্দুভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ১৯২০ সালের প্রাচীন সাবেক মহকুমা শহরে পালিত হচ্ছে সনাতন ধর্মালম্বীর সবচেয়ে বড়

মানিকছড়ির বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠনে যুব রেড ক্রিসেন্ট সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ
মানিকছড়ির সাংবাদিক আলমগীর হোসেন’র পিতার ইন্তেকাল
লক্ষ্মীছড়িতে ৩য় পর্যায়ে প্রধানমন্ত্রীর উপহার পেলো আরো ১৭৪টি পরিবার 

রতন বৈষ্ণব ত্রিপুরা, রামগড: করোনাভাইরাস প্রার্দুভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ১৯২০ সালের প্রাচীন সাবেক মহকুমা শহরে পালিত হচ্ছে সনাতন ধর্মালম্বীর সবচেয়ে বড় সর্বজনীন শারদীয় দুর্গোৎসব। এ উপলক্ষে বিশ্বশান্তি কামনায় আজ মানব জাতির কল্যাণে ধর্ম, বর্ণ, নির্বিশেষে গড়ে উঠেছে মহামিলনে।

তারই দ্বারা অব্যাহত রেখে বুধবার(১৩অক্টোবর) রাত ৮টায় রামগড়ের শ্রীশ্রী দক্ষিণেশ্বরী কালীবাড়ী পুজা মন্ডপ পরিদর্শনের মধ্যেদিয়ে উপস্থিত ছিলেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মংসুইপ্রু চৌধুরী, পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য খোকনেশ্বর ত্রিপুরা, উপজেলা চেয়ারম্যান বিশ্ব প্রদীপ কুমার কার্বারী, ইউএনও(ভারপ্রাপ্ত)উম্মে হাবিবা মজুমদার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হোসাইন মোহাম্মদ রায়হান কাজেমী,ভাইস চেয়ারম্যান আনোয়ার ফারুক, ওসি সামসুজ্জামান, (ওসি তদন্ত) রাজীব চন্দ্র কর, জেলা আ’লীগের সহ সভাপতি কল্যাণ মিত্র বড়ুয়া- দপ্তর সম্পাদক চন্দন কুমার দে- উপ দপ্তর সম্পাদক নুরুল আজম- কৃষি সম্পাদক শুভ মঙ্গল চাকমা, উপজেলা আ’লীগ সভাপতি মোস্তফা হোসেন- সাধারন সম্পাদক কাজী আলমগীর, পৌর আ’লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র প্রার্থী রফিকুল আলম কামাল,কাউন্সিলর আহসান উল্ল্যাহ, সংরক্ষিত সদস্যা কণিকা বড়ুয়া,মন্ডির পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি শ্যামল রুদ্র, স্থানীয় সাংবাদিকসহ জেলা -উপজেলা আ’লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মী বৃন্দ।

পুজামন্ডপ পরির্দশন কালে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মংসুইপ্রু চৌধুরী বলেন- জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে এদেশের মানুষ অনাবিল আনন্দে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির মধ্যদিয়ে যারযার ধর্ম মর্যাদার সহীদ পালন করে আসছে। তিনি আরো বলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার একটি সময়োপযোগী শ্লোগান রয়েছে-‘ধর্ম যার যার, উৎসব সবার’ যা আজ আমাদের সম্প্রীতির বন্ধনকে আরো সুদৃঢ় করে তুলেছে। তিনি আরো বলেন সম্প্রতি মহামারি করোনা প্রার্দুভাবের হাত থেকে রক্ষার্থে সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহবান জানান। পরে তিনি দূর্গাপুজা উদযাপন পর্ষদের হাতে নগদ অর্থ প্রদান করেন।