রামগড়ে হানাদার মুক্ত দিবস পালিত

রামগড়ে হানাদার মুক্ত দিবস পালিত

রামগড় (খাগড়াছড়ি)প্রতিনিধি: আজ ৮ই ডিসেম্বর রামগড় হানাদার মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ও এদেশীয় দোসরদের সহায়তায় রামগড় উপজেলার

মহালছড়িতে সেই মারমা কিশোরী ধর্ষণের ঘটনায় মামলা, আটক ১
সৌহার্দ্য ও সম্প্রীতির পাশাপাশি আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে ভুয়সী অবদান রাখছেন গুইমারা রিজিয়ন
লক্ষ্মীছড়ি উপজেলায় পুষ্টি বিষয়ক বার্ষিক বাজেট কর্মপরিকল্পনা সমন্বয় সভা

রামগড় (খাগড়াছড়ি)প্রতিনিধি: আজ ৮ই ডিসেম্বর রামগড় হানাদার মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ও এদেশীয় দোসরদের সহায়তায় রামগড় উপজেলার ক্যাম্প অগ্নিসংযোগ, লুটপাট বহু নারীকে ধর্ষণসহ হাজার হাজার নিরীহ জনসাধারণকে নৃশংসভাবে হত্যা করে। দিবসটি উপলক্ষে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে র্যালি শেষে বিজয় ভাষ্কার্যস্থলে শহীদদের স্বরণে পুষ্পস্তবক অর্পণ ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

বুধবার (৮ডিসেম্বর) সকালে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উম্মে হাবিবা মজুমদারের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বিশ্ব প্রদীপ কুমার কারবারী।

উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার উম্রাচিং চৌধুরীর সঞ্চালনায় সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, পৌর মেয়র রফিকুল আলম কামাল, প্রাক্তন মেজর বীর মুক্তিযোদ্ধা বাবুল কান্তি মজুমদার, সাবেক বীর মুক্তিযোদ্ধা ডিপুটি কমান্ডার মোস্তফা হোসেন, অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ সামসুজ্জামান । এতে আরো বক্তব্যে রাখেন ওসিএলএসডি আসাদুজ্জামান, সাংবাদিক নিজাম উদ্দিন সহ প্রমুখ।

বক্তাগন বলেন, ১৯৭১ সালে যুদ্ধকালীন সময়ে ১নং সেক্টরের আওতাধীন বাংলাদেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের অবস্থিত পার্বত্য অঞ্চল রামগড় ছিল অত্যাধিক গুরুত্বপূর্ণ সেক্টর। দীর্ঘ ৯ মাসের সংগ্রামী মুক্তিযুদ্ধের লড়াইয়ের পর পাক-হানাদার বাহিনী ও তাদের দোসরদের পতনের পর ৮ ডিসেম্বর বিকেলে স্থানীয় মুক্তিযুদ্ধারা রামগড় প্রধান ডাকঘরের শীর্ষে লাল-সবুজের পতাকা উত্তোলন করে রামগড়কে হানাদার মুক্ত ঘোষণা করেন।