খাগড়াছড়িখাগড়াছড়ি সংবাদপাহাড়ের সংবাদশিরোনামস্লাইড নিউজ

রাসেল হত্যার মূল আসামী ধরা ছোঁয়ার বাইরে: ছাত্রলীগের সংবাদ সম্মেলন

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি: ছাত্রলীগ কর্মী মোঃ রাসেল(১৭) হত্যাকান্ডের ঘটনায় খাগড়াছড়িতে সংবাদ সম্মেলন করেছে জেলা ছাত্রলীগ। বৃহষ্পতিবার সকালে শহরের কদমতলী এলাকায় একটি কমিউনিটি সেন্টারে এ সম্মেলন অনুষ্টিত হয়। এতে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন জেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি আমিন হোসেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা নুরন্নবী চৌধুরী, সিনিয়র সহ সভাপতি রণ বিক্রম ত্রিপুরা, কল্যান মিত্র বড়ুয়া, মনির হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক মংক্যাচিং চৌধুরী, যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক মংসুইপ্রু চৌধুরী অপু,  জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি টেকো চাকমা, রাসেলের বাবা নুর হোসেন ও মা মাজেদা বেগম।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, রাসেল হত্যাকান্ডের ৫দিন অতিবাহিত হলেও এখন মামলার প্রধান আসামী পৌর মেয়র রকিফকুল আলম, ছোট ভাই দিদারুল আলমদের গ্রেফতার করা হয়নি। উল্টো প্রকাশ্যে প্রশাসনের সহযোগীতায় ঘুরে বেড়াচ্ছে। গত পৌর নির্র্বাচনের পর থেকে দলের বহিস্কৃত সাধারণ সম্পাদক জাহেদুল আলম, তার ছোট ভাই রফিকুল আলম ও দিদারুল আলমের অনুসারীদের হামলায় আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের হামলা, নির্যাতন করা হয় বলে জানানো হয়।

এদিকে রাসেলের পরিবার থেকে অভিযোগ করে বলেন, ২০১৭ সালের ২নভেম্বর রাসেল হত্যার আগে মেয়র রফিকুল আলমের অনুসারীরা বাসায় ভাংচুর হামলা ও রাসেলের মা’কে কুপিয়ে আহত করে। এই ঘটনায় থানায় মামলা করা হয়। ওই মামলার ৫জন আসামী রাসেল হত্যার ঘটনায় জড়িত বলেও জানানো হয়। সংবাদ সম্মেলনে রাসেলের মা, বাবা, বড়বোন কান্নাজড়িত কন্ঠে অভিযোগ করেন, পৌর মেয়রের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করায় তাদের বাসায় গিয়ে পুরো পরিবারকে শেষ করে দিবে এমন হুমকি দিচ্ছে। তারা জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে বলেন, আমাদের কিছুই চাওয়া নেই, শুধু হত্যাকারী বিচার এবং ফাঁসি চাই।

উল্লেখ্য, গত ২৪ মার্চ জেলা শহরের মিলনপুর ব্রীজ এলাকায় ওয়ার্ড ছাত্রলীগ কর্মী মোঃ রাসেল শেখ (১৭)কে ছুরিকাঘাত করে আহত করে। খাগড়াছড়ি হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে চট্টগ্রাম মেডিকেলে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।