খাগড়াছড়িখাগড়াছড়ি সংবাদপাহাড়ের সংবাদরামগড়শিরোনামস্লাইড নিউজ

সম্প্রতি নওমুসলিম ওমর ফারুক হত্যার বিচারের দাবিতে রামগড়ে মানববন্ধন

রামগড় প্রতিনিধি: সম্প্রতি বান্দরবানের রোয়াংছড়িতে নওমুসলিম ইমাম মো: ওমর ফারুককে গুলি করে হত্যার প্রতিবাদে রামগড়ে  মানববন্ধন করে খুনিদের গ্রেফতার ও বিচার দাবী করেছে আলেম ওলামা সহ স্থানীয়রা।
২৪ জুন বৃহস্পতিবার সকালে রামগড় বাজারে পুলিশ বক্স সংলগ্ন  কাওমী মাদরাসা ও ওলামা ঐক্য পরিষদের উপদেষ্টা মাওলানা মুফতী মীর হোসেন এর সভাপতিত্বে কাওমী মাদরাসা ও ওলামা ঐক্য পরিষদ এবং ইসলামী আন্দোলন রামগড় শাখার আয়োজনে ঘন্টাব্যাপী এই মানববন্ধন কর্মসূচী পালিত হয়। এসময় উপজেলার বিভিন্ন মসজিদ, মাদরাসা ও সংগঠনের আলেম-মাওলানা সহ কর্মসূচীতে একাত্মতা প্রকাশ করে অংশ নেয় বিভিন্ন শ্রেণী পেশার সাধারন জনগন।
মানববন্ধনে বক্তারা অস্ত্রধারীদের গুলিতে শহীদান হওয়া ইমাম মো: ওমর ফারুকের রুহের মাগফেরাত কামনা এবং পরিবাররের জন্য দু’হাত তুলে মোনাজাত করে দোয়া করেন। এসময় তারা বলেন, পার্বত্য এলাকায় অশান্তি সৃষ্টি করতে সন্ত্রাসীরা বিভিন্ন সাধারণ জনগণকে গুম হত্যার পাশাপাশি এখন ইমামদের হত্যা করা শুরু করেছে আর এভাবে চললে পার্বত্য এলাকায় অশান্তির দাবানল ছড়িয়ে পড়বে।
এসময় বক্তারা আরো বলেন,  ইমাম হত্যাকারীদের যথাযথ শাস্তি দাবি করে পাহাড়ী জনপদে বসবাসরত সকল সন্ত্রাসীদের মুলোৎপাটন, সকল মসজিদের ইমাম, মুয়াজ্জিন ও আলেম সমাজের নিরাপত্তা প্রদানসহ ৯ দফা দাবি বাস্তবায়নের জন্য সরকারের কাছে জোর দাবি জানান।
কাওমী মাদ্রাসা ও ওলামা ঐক্য পরিষদ রামগড় শাখার প্রচার সম্পাদক আবদুল হান্নান মনসুর এর সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন,  ইসলামী আন্দোলন খাগড়াছড়ি শাখার সভাপতি মাওলানা হাফেজ দেলোয়ার হোসেন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আনোয়ার ফারুক, রামগড় মাদ্রাসার অধ্যক্ষ আবদুল হাই নিজামী, কাওমী মাদ্রাসা ও ওলামা ঐক্য পরিষদের উপদেষ্টা কারী নুর হোসাইন, সংগঠনটির খাগড়াছড়ি যুগ্ন সম্পাদক শহিদ উল্যাহ, রামগড় উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক হাফেজ আবদুল মালেক , পার্বত্য নাগরিক সুরক্ষা অধিকারের রামগড় উপজেলা আহ্বায়ক মো. ইউনুছসহ প্রমুখ।
প্রসঙ্গত : গত ১৮জুন (শুক্রবার) রাতে বান্দরবানের রোয়াংছড়ি উপজেলার সদর ইউনিয়নের তুলাছড়ি আগাপাড়া এলাকায় এশারের নামাজ শেষে বাড়ি ফেরার পথে অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠির ত্রিপুরা সম্প্রদায় থেকে ধর্মান্তরিত হয়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণকারী মো.ওমর ফারুককে গুলি করে হত্যা করে। আর এই ঘটনায় রোয়াংছড়ি থানায় অজ্ঞাত পরিচয়ে ৫ জন’কে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়।