খাগড়াছড়িখাগড়াছড়ি সংবাদপাহাড়ের সংবাদশিরোনামস্লাইড নিউজ

খাগড়াছড়িতে গ্রামীণ পর্যায়ে নারী অধিকারে বিশেষ অবদানে স্বীকৃতি স্বরূপ সম্মাননা প্রদান

দহেন বিকাশ ত্রিপুরা: আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে নেতৃত্বে নারী: কোভিড-১৯ বিশ্ব সাফল্যে নারী-পুরুষের সমতা’ প্রতিপাদ্যে খাগড়াছড়িতে খাগড়াপুর মহিলা কল্যাণ সমিতি (কেএমকেএস)’র উদ্যোগে বিভিন্ন সংস্থার সহযোগিতায় আলোচনা সভা, নারী অধিকার বিষয়ক কবিতা আবৃত্তি ও গ্রামীণ নারী নেতৃত্ব সম্মাননা অনুষ্ঠান করা হয়েছে।

আন্তর্জাতিক নারী দিবস-২০২১খ্রিঃ উপলক্ষে গ্রামীণ পর্যায়ে সমাজ কর্ম ও নারী অধিকারে বিশেষ অবদান’ এর স্বীকৃতি স্বরূপ তিনজন নারীকে সম্মাননা প্রদান করেন খাগড়াপুর মহিলা কল্যাণ সমিতি। যারা সম্মাননা পেলেন তারা হলেন: জেলা সদর উপজেলার কমলছড়ি ইউনিয়ন ভূয়াছড়ি মারমা পাড়ার মিনা রোয়াজা, একই ইউনিয়নের খ্যাদং পাড়ার চাই ওয়ং মারমা ও পেরাছড়া ইউনিয়ন হেডম্যান পাড়ার রাঙ্গাবী চাকমা।

৯মার্চ মঙ্গলবার সকাল ১০টায় জেলা সদর খাগড়াপুরস্থ উইমেন রিসোর্স সেন্টারে আয়োজিত অনুষ্ঠানে খাগড়াপুর মহিলা কল্যাণ সমিতির কার্যনির্বাহী সদস্য শাপলা দেবী ত্রিপুরার সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এ সম্মাননা তুলে দেন খাগড়াছড়ি জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোঃ মহিউদ্দীন আহমেদ।

প্রধান অতিথি বলেন, বর্তমানে রাষ্ট্রের বিভিন্ন পর্যায়ে নারীদের বিচরণ। বঙ্গবন্ধুর কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার যোগ্য নেতৃত্বে সারাদেশে এখন নারীরা এগিয়ে গেছে। নারীরা নিজ দক্ষতা ও মনোবলের মাধ্যমে তারা প্রত্যেকটি কাজে, কর্মে দ্রুততার সাথে এগিয়ে চলছে। কিন্তু কিছু কিছু ক্ষেত্রে নারীরা এখনো বিভিন্ন ভাবে সহিসংতার শিকার হয়। তার জন্য সম্মিলিত প্রচেষ্টায় নারীদের সকল ক্ষেত্রে সুযোগ প্রদানের মাধ্যমে এগিয়ে নিতে হবে। নারীরা এগিয়ে গেলে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে অবদান রাখবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

এসময় আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাবারাং কল্যাণ সমিতির নির্বাহী পরিচালক ও প্রথম জাতীয় মাতৃভাষা পদকপ্রাপ্ত মথুরা বিকাশ ত্রিপুরা, দুর্বার নারী নেটওয়ার্কের প্রতিনিধি নমিতা চাকমা, উইমেন রিসোর্স নেটওয়ার্কের জেলা সমন্বয়ক চিংমেপ্রু মারমা, তৃণমূল উন্নয়ন সংস্থার নির্বাহী পরিচালক রিপন চাকমা প্রমুখ। এতে খাগড়াপুর মহিলা কল্যাণ সমিতির পিসি গীতিকা ত্রিপুরার সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তব্য ও ধারণাপত্র পাঠ করেন মনিষা তালুকদার।

বক্তারা আরও বলেন, টেকসই উন্নয়নে নারীর অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে হবে। ঘরে বাইরে কর্মস্থলে নারীর সমর্যাদা, সম্মান ও পূর্ণ নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে রাষ্ট্র ও সমাজ সকলে প্রতি আহবান জানান তারা। মুক্ত আলোচনায় অংশ নেন স্বর্নলিকা ত্রিপুরা, রাঙাবী চাকমা, জানাতুল নাঈম, শ্রাবণী ত্রিপুরা, মিনুচিং মারমা, কিনাশ্রী ত্রিপুরাসহ আরো অনেকে।

এছাড়াও আয়োজন করা হয় নারী অধিকার বিষয়ক কবিতা আবৃত্তি ও গান। এতে কবিতা আবৃত্তিতে অংশ নেন কাসারাং ত্রিপুরা, জয় ত্রিপুরা, অনিমেষ ত্রিপুরা, প্রীতি ত্রিপুরা, পিংকি বড়ুয়া, স্বপ্না চাকমা এবং গানে অংশ নেন মিনুচিং মারমা।