নিরাপদ প্রসব বিষয়ক পানছড়িতে সাংবাদিকদের নিয়ে অবহিতকরণ সভা

পানছড়ি প্রতিনিধি:  খাগড়াছড়ির পানছড়ি উপজেলায় কর্মরত সাংবাদিকদের সাথে স্ট্রেনদেনিং হেলথ আউটকামস ফর ওমেন এন্ড চিলড্রেন প্রজেক্ট (শো) এর কার্যক্রম সম্পর্ক

মিথ্যা মামলায় গ্রেফতার বন্ধ ও নির্বাচনী পরিবেশ সৃষ্টির দাবিতে খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপির প্রেস ব্রিফিং
মানিকছড়িতে স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে বিনামূল্যে রক্তের গ্রুপ নির্ণয়
অপহৃত তিন বাঙ্গালীকে উদ্ধারের দাবীতে খাগড়াছড়িতে সকাল সন্ধ্যা হরতাল পালিত

পানছড়ি প্রতিনিধি:  খাগড়াছড়ির পানছড়ি উপজেলায় কর্মরত সাংবাদিকদের সাথে স্ট্রেনদেনিং হেলথ আউটকামস ফর ওমেন এন্ড চিলড্রেন প্রজেক্ট (শো) এর কার্যক্রম সম্পর্কে অবহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। গ্লোবাল অ্যাফেয়ার্স কানাডার অর্থায়নে ইপসা (ইয়ং পাওয়ার ইন সোশ্যাল এ্যাকশন) ও প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ যৌথভাবে এই সভার আয়োজন করে। ১১ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার  এই সভার আয়োজন করা হয়।

ইপসা’র প্রকল্প ব্যবস্থাপক মোঃ জসিম উদ্দিন মতবিনিময় সভায় স্বাগত বক্তব্যে রাখেন। শো প্রকল্প সম্পর্কে সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে প্রকল্প প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ এর রিপোর্টিং ও ডকুমেন্টেশন স্পেশালিস্ট আসাদ রাসেল।

সভায় সাংবাদিকদেরকে জানানো হয় ২০১৬ সাল থেকে এ প্রকল্পের অধীনে ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র সমূহে  আগস্ট ২০১৮ পর্যন্ত ১৬ টি নিরাপদ প্রসব সম্পন্ন হয়েছে। ২৭৯ জন গর্ভবতী প্রসব পূর্ববতী ও ১৩৪ জন প্রসব পরবর্তী স্বাস্থ্য সেবা গ্রহণ করেছেন এবং ১০ জন গর্ভবতীকে উন্নত চিকিৎসার জন্য  জেলা সদর ও  মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে রেফার করা হয়েছে। পরে সাংবাদিকবৃন্দ পানছড়ি উপজেলার লোগাং ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে প্রকল্পের কার্যক্রম সরেজমিনে ঘুরে দেখেন। এ সময় তারা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে আগত বেশ কয়েকজন সেবা গ্রহীতাদের সাথে কথা বলেন।

মা ও শিশু মৃত্যু রোধে বিনামূল্যে এই সকল স্বাস্থ্য সেবা প্রদান করা হচ্ছে। প্রতিটি ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান কেন্দ্রে ২ জন করে দক্ষ সিএসবিএ রয়েছেন যারা ২৪/৭ দিন এই স্বাস্থ্যকেন্দ্র অবস্থান করে নিরাপদ প্রসব নিশ্চিত করার জন্য কাজ করছে। এছাড়াও গ্রাম পাড়া পর্যায়ে নিরাপদ প্রসব সম্পর্কে সচেতন করার ৪৬ জন নারী এবং ১০ জন পুরুষ স্বাস্থ্য  কর্মী রয়েছে।

দুর্গম পাহাড়ী এলাকার  গরীব মায়েরা যাতে জরুরী অবস্থায় এ উন্নত প্রসব সেবা পাওয়ার জন্য খাগড়াছড়ি জেলা হাসপাতালে যেতে পারে এইজন্য একটি  অ্যামবুলেন্স’র ব্যবস্থা রয়েছে । এ অ্যামবুলেন্স’র সাহায্যে খাগড়াছড়ি জেলা হাসপাতালে গিয়ে মোট ১০৭ জন মা নিরাপদ প্রসব সেবা গ্রহণ করেছেন।