লামায় প্রকাশ্যে দিনের আলোয় পাহাড়ি সশস্ত্র সন্ত্রাসী হামলা

লামা (বান্দরবান) প্রতিনিধি: বান্দরবানের লামায় মঙ্গলবার দিনেদুপুরে পাহাড়ী সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়ে লুটপাট, ভাঙ্গচুর ও তাদের প্রহারে আহত হয়েছেন

খাগড়াছড়িতে আগুনের ঘটনায় প্রভাষক’র মৃত্যুতে শোক প্রকাশ ও অনুদান প্রদান
পার্বত্য বাঙালী ছাত্র পরিষদ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শাখার কাউন্সিল ও ইফতার মাহফিল
লক্ষ্মীছড়িতে পাহাড় কাটার অপরাধে ভ্রাম্যমাণ আদালতে এক মাসের জেল

লামা (বান্দরবান) প্রতিনিধি: বান্দরবানের লামায় মঙ্গলবার দিনেদুপুরে পাহাড়ী সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়ে লুটপাট, ভাঙ্গচুর ও তাদের প্রহারে আহত হয়েছেন অনেকে। মঙ্গরবার সকালে ২৫/২৬ জনের একটি সশস্ত্র সন্ত্রসীদল প্রথমে লামা সদর ইউনিয়নের ছোটবমু বাজার ও পরে মেরাখোলা বাজারে হামলা দিয়ে লুটপাট, ভাঙ্গচুর ও সামনে যাকে পেয়েছে তাকেই বেপরোয়া পিটিয়ে আহত করে। আহতরা হলেন, মিলন পাল, ওমর বসাক, সমর বসাক ও ডাঃ নেপাল কান্তি সেন।

সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা প্রথমে প্রতিটি পরিবার ও দোকান থেকে তিনহাজার টাকা করে চাঁদা দাবি করে। চাঁদা না পেয়ে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে নির্বিচারে ভাঙ্গচুর, লুটপাট ও মারধর করে চলে যায। ঘটনার খবর পেয়ে লামা থানার পুলিশ পরিদর্শক আপ্পেলা রাজু নাহার নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে যান। একইসময রুপসীপাড়া ও চম্পাতলী সেনাক্যাম্পের অধিনায়ক লেঃ কঃ মাহাবুবুর রহমানের নেতৃত্বে সেনাবাহিনী ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন। পুলিশ ও সেনাবাহিনীর উপস্থিতি টের পেয়ে সন্ত্রাসীরা দ্রুত এলাকা ত্যাগ করে পালিযে যায়।

এঘটনার পর এলাকায় আতঙ্ক নেমে আসে। এলাকাবাসী ছোটবমুবাজার ও মেরাখোলা বাজারে অস্থায়ী সেনাক্যাম্প স্থাপনের জোর দাবি জানিয়েছেন। উল্লেখ্য ইতিপুর্বেও একই ইউনিয়নের বৈল্যারচর বাজারে সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়ে দোকনের মালামাল ও নগদ টাকা লুটপাট করেছিল। এসব বিষয়ে গত ২৭ আগষ্ট উপজেলার মাসিক আইনশৃংখলা সভায় ইউপি চেয়ারম্যান মিন্টু কুমার সেন অবহিত করার পরও প্রশাসন কোন উদ্যোগ নেয়নি। এ কারনে সন্ত্রাসীরা দিনদিন বেপরোয়া হয়ে উঠছে বরে সকরে মনে করেন।